বিশেষ অবদানে স্বাস্থ্য বিভাগের সম্মাননা পেলেন ডা. সাখাওয়াত উল্যাহ ও ডা. আব্দুর রব

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চট্টগ্রাম বিভাগের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় বিশেষ অবদানের জন্য স্বীকৃতি স্বরূপ সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠান ২৭ জুন রোববার বেলা ১২টায় নগরীর সিনেমা প্যালেস সংলগ্ন চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। এতে করোনাকালে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ সম্মাননা পেয়েছেন চাঁদপুরের সিভিল সার্জন ডা. মো. সাখাওয়াত উল্যাহ ও তার ভাই সিনিয়র চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের কনসালটেন্ট মেডিসিন ও করোনা ফোকাল পার্সন ডা. আব্দুর রবসহ বিভাগের বিভিন্ন জেলার সিভিল সার্জন, সদর হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা, জুনিয়র কনসালটেন্ট ও আবাসিক মেডিকেল অফিসারসহ মোট ৩২ জন।


বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমামের হাত থেকে সম্মানননা গ্রহণ করেন তারা।
করোনাভাইরাস সংক্রমণের শুরু থেকেই চাঁদপুরের সিভিল সার্জন ডা. সাখাওয়াত উল্যাহ স্বাস্থ্য বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। তার সার্বক্ষণিক তদারকিতে জেলায় চলছে করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা ও টিকাদান কার্যক্রম। এছাড়া তিনি করোনা সংক্রমণ রোধে জনসচেতনতামূলক কর্মকান্ডও নিয়মিত করছেন।
সম্মাননা পাওয়ার পর সিভিল সার্জন ডা. মো. সাখাওয়াত উল্যাহ বলেন, সম্মননা কাজের অনুপ্রেরণা বাড়িয়ে দেয়। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক ডাঃ হাসান শাহরিয়ার কবীর স্যারকে। যিনি আমাকে এবং আমার ছোট ভাই ডাঃ আবদুর রবকে এই সম্মাননা প্রদান করেছেন। আপনাদের সকলের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই আমাদের দুই ভাইয়ের প্রতি ভালোবাসা ও দোয়া করার জন্য।
সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মোস্তফা খালেদ মাহমুদ, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এস.এম হুমায়ুন কবীর, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালের পরিচালক ডা. মোঃ মহিউদ্দিন, ফৌজদারহাট বিআইটিআইডির ল্যাব ইনচার্জ ডা. শাকিল আহমেদ, চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতালের উদ্যোক্তা ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. বিদ্যুৎ বড়ুয়া।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ও ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সেখ ফজলে রাব্বি, কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন মীর মোবারক হোসাইন নোয়াখালী জেলা সিভিল সার্জন ডা. মাসুম ইফতেখার, রাঙ্গামাটি জেলা সিভিল সার্জন বিপাস খীসা, চট্টগ্রাম ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট (মেডিসিন) ডা. মোঃ আবদুর রব প্রমূখ।
সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্পষ্ট নিদেশনায় ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীরের নেতৃত্বে বিভাগের প্রত্যেক জেলায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবেলায় স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা চ্যালেঞ্জ নিয়ে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।
বৈশ্বিক মহামারী করোনার প্রাদুর্ভাবের প্রথম দিকে হাসপাতালগুলোতে অক্সিজেন, ন্যাজাল ক্যানোলা, আইসিইউ বেডসহ অন্যান্য চিকিৎসা সরঞ্জাম সংকট থাকলেও পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি সমাজের ধনার্ঢ্য ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান এগিয়ে আসার কারণে এখন স্বয়ং সম্পূর্ণ। করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্য বিভাগের কাজের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে হবে।
বক্তারা আরও বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে তৃতীয় দফায় বিনামূল্যে কোভিড ভ্যাকসিন প্রদানের পাশাপাশি চিকিৎসক, নার্স ও কর্মচারীরা জীবনবাজি রেখে সেবা দিচ্ছেন বলেই এখানে করোনা পরিস্থিতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে এবং করোনার প্রথম ধাপের পর দ্বিতীয় ধাপ মোকাবেলায় সক্ষম হয়েছি।
ঘরের বাইরে সবসময় মাস্ক পরিধান ও শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনসহ আমরা সকলে সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করলে তৃতীয় ধাপ মোকাবেলার মাধ্যমে করোনা যুদ্ধে জয়ী হবো। স্বাস্থ্য-সেবার সার্বিক মানোন্নয়নে প্রতিযোগিতার কোন বিকল্প নেই।
যে প্রতিষ্ঠান যত বেশি কাজ করবে সে প্রতিষ্ঠান ভবিষ্যতে অনেকদূর এগিয়ে গিয়ে সরকারের ভাবমূর্তি আরো উজ্বল করবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *