করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে চাঁদপুর

এক দিনে ৩১ জনের করোনা সনাক্ত, ২ জনের মৃত্যু
চাঁদপুর প্রতিদিন রিপোর্ট :
করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার বিবেচনায় চাঁদপুরসহ দেশের ২৯টি জেলাকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। এদিকে চাঁদপুরে এক দিনে আরও ৩১ জনের করোনা সনাক্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে আরও একজনের।
করোনা সংক্রমণের ঝুকিতে থাকা ২৯ জেলার মধ্যে রয়েছে ঢাকা, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, মাদারীপুর, শরীয়তপুর, ফেনী, চাঁদপুর, নীলফামারী, সিলেট, টাঙ্গাইল, রাজশাহী ও নওগাঁ।
অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমআইএস শাখায় ২৪ মার্চ পর্যন্ত আসা তথ্য বিশ্লেষণ করে এসব জেলাকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।
উচ্চ ঝুঁকির এসব জেলায় সংক্রমণ প্রতিরোধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, জেলা পর্যায়ে করোনা নিয়ন্ত্রণ কমিটি রয়েছে। সংশ্লিষ্ট জেলাগুলোতে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে সেটা সেই কমিটি ঠিক করবে আর অধিদফতর বিষয়টি মনিটর করবে।
করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে ইতোমধ্যেই জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে মাঠে কাজ করছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এছাড়া সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছে স্বাস্থ্য বিভাগ। সেই সাথে বাইরে বের হলে অবশ্যই মাস্ক পড়তে হবে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার আহ্বান জানানো হয়েছে।
এদিকে করোনা সংক্রমণের এ ঝুকি দেখা যাচ্ছে চাঁদপুরেও। মঙ্গলবারও সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রহিমা বেগম (৬৫) নামের সদর উপজেলার শিলন্দিয়া গ্রামের এক নারী মারা গেছেন। তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। সোমবার বেলা ১১টার দিকে করোনার উপসর্গ নিয়ে তিনি হাসপাতালে আসেন। তাকে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তির পর নমুনা সংগ্রহ করা হয়। রাতে রিপোর্ট আসে তিনি করোনায় আক্রান্ত। মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) ভোর ৪টার দিকে তিনি মারা যান। এছাড়া চাঁদপুরে আরও ৩১ জনের করেনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩১২৮ জন। আর মৃত বেড়ে হয়েছে ৯২ জন। সুস্থ হয়েছেন ২৮২৮ জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন ২০৮ জন। সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে মঙ্গলবার সকালে এ তথ্য জানা গেছে।
সিভিল সার্জন অফিস জানায়, সোমবার জেলায় মোট ২০৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ৩৪ জনের রিপোর্ট করোনা পজেটিভ। বাকী ১৭১ জনের রিপোর্ট করোনা নেগেটিভ। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে সদর উপজেলায় ১৬ জন, মতলব দক্ষিণে ২ জন, মতলব উত্তরে ২ জন, হাজীগঞ্জে ৫ জন, শাহরাস্তিতে ৩ জন, হাইমচরে ২ জন, কচুয়ায় ১ জন।
চাঁদপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সাজেদা পলিন বলেন, সদর উপজেলায় গত দু’ দিনে তিন জন মারা গেছেন। মঙ্গলবার ১৬ জনের রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে। তিনি বলেন, মন্ত্রণালয় নির্দেশনা বাস্তবায়নে প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য বিভাগ কাজ করছে।
সিভিল সার্জন অফিস জানায়, জেলায় এ পর্যন্ত আক্রান্তদের মধ্যে সদর উপজেলায় ১ হাজার ৩৮৯ জন, হাইমচরে ১৮১ জন, মতলব উত্তরে ২৩৪ জন, মতলব দক্ষিণে ৩২৩ জন, ফরিদগঞ্জে ৩৩৮ জন, হাজীগঞ্জে ২৭৮ জন, কচুয়ায় ১১২ জন এবং শাহরাস্তিতে ২৭৬ জন।
জেলায় মৃত ৯৩ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ৩২ জন, ফরিদগঞ্জে ১৪ জন, হাজীগঞ্জে ১৭ জন, শাহরাস্তিতে ৭ জন, কচুয়ায় ৬ জন, মতলব উত্তরে ১১ জন, মতলব দক্ষিণে ৫ জন এবং হাইমচরে ১ জন।
উল্লেখ্য, গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে। গত ৩০ নভেম্বরের পর ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত সংক্রমণ ধারাবাহিকভাবে কমতে থাকে। কিন্তু মার্চের শুরু থেকে দৈনিক শনাক্ত রোগী, মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। সোমবার একদিনে ৫ হাজার ১৮১ জনের শরীরে করোনা ধরা পড়েছে, যা মহামারী শুরুর পর সর্বোচ্চ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *