গৃহহীনদের জমিসহ ঘর প্রদান আজ, উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

চাঁদপুরে ঘর পাচ্ছে ১১৫ গৃহহীন পরিবার
: নিজস্ব প্রতিবেদক :
আশ্রয়ণের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে চাঁদপুরে ১১৫টি পরিবারের জন্য ১ কোটি ৯৬ লাখ ৬৫ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মিত ঘরগুলো হস্তান্তর করা হবে আজ শনিবার। সারাদেশে একযোগে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি এবং ঘর প্রদান প্রকল্পের শুভ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
জেলা প্রশাসন জানিয়, ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মধ্যে জমিসহ ঘর পাচ্ছে চাঁদপুর সদর উপজেলায় ৪০, মতলব দক্ষিণ উপজেলায় ২৫, মতলব উত্তর উপজেলায় ৫, শাহরাস্তি উপজেলায় ১৫, হাজীগঞ্জ উপজেলায় ৫, হাইমচর উপজেলায় ২০টি মিলিয়ে ১১৫ টি। এছাড়া মতলব দক্ষিণ উপজেলার চরপাথালিয়া আশ্রয়ন প্রকল্পে সাতাশটি পেরেকের ১৩৫ টি পরিবারের মধ্যে ৪৫টি পরিবারকে পূর্ণবাসন করার নিমিত্তে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে আরও ৪৫ গৃহনির্মাণ করা হয়েছে। এই ৪৫ টি মিলিয়ে সর্বমোট নির্মিত ১৬০টি কবুলীয়ত সম্পাদনা, নামজারিমূলে খতিয়া সৃজন, সালামি আদায় সম্পন্ন হয়েছে।
এ বিষয়ে অনুষ্ঠিত প্রেসব্রিফিংয়ে জেলা প্রশাসক বেগম অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন, বাংলাদেশের একজন মানুষ গৃহহীন থাকবে না। শুধু তাই নয় এই ঘোষণা বাস্তবায়নে ইতিমধ্যে তিনি সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছেন। কতটা বড় মন এবং হৃদয়ের মানুষ হলে এমন একটি প্রকল্প হাতে নেয়া যায়, তা সহজেই অনুমেয়। তিনি তার পিতার মতোই দেশ এবং দেশের মানুষকে ভালোবাসেন। আর দেশের মানুষকে ভালোবাসেন বলেই তিনি এই উদ্যোগটি হাতে নিয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই সুন্দর উদ্যোগটি বাস্তবায়নে হোক এটি আমরা সকলেই চাই।
জেলা প্রশাসক বলেন, আমরা আশা নিয়ে বাচতে চাই। মানুষ নতুন ঘর পাচ্ছে, নতুনভাবে বাচার আশ্বাস পাচ্ছে। যাদের কিছু ছিল না, নদীতে সবকিছু বিলীন হয়ে গেছে তারা নতুন সুন্দর ঘর পাচ্ছে। যেখানে দু’টো রুম আছে, একটি বাথরুম. রান্নাঘর, বারান্দাসহ বসবাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এখানে বিদ্যুৎ এবং পানির ব্যবস্থা আছে। এখানে অনেক সুন্দর পরিবেশ রয়েছে। তারা সেখানে তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে থাকতে পারবে।
জেলা প্রশাসক জানান, ২৩ জানুয়ারি সকাল ১০টায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘরগুলো উদ্বোধন করবেন। ওইদিনই ঘর এবং জমির প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ সবকিছু তাদেরকে হস্তান্তর করা হবে। সেদিন থেকেই তারা ঘরগুলোতে বসবাস করতে পারবে।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জানান, ২৩ জানুয়ারি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যুক্ত থাকবেন জেলা প্রশাসন। তিনি জানান, জমির মালিকানা ও ঘরের মালিকা ওইদিনই বুঝিয়ে দেয়া হবে। এক্ষেত্রে যত ধরনের প্রসেডিওর আছে সবকিছুই সম্পন্ন করা হয়েছে। কিছু জায়গায় কোন কাজ অসম্পূন্ন থাকলে তা দ্রুতই করে দেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *