চাঁদপুরের উন্নয়ন, আইনশৃঙ্খলা ভালো রাখাই আমার মূল ফোকাস : ডিসি অঞ্জনা খান মজলিশ

আশিক বিন রহিম :
চাঁদপুরের নবাগত জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ এর সাথে চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের পরিচিতি ও মতবিনিময় সভা অনু্ষ্িঠত হয়েছে। গতকাল ৬ জানুয়ারি বুধবার সকাল ১২টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এই পরিচিতি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।


জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ এর সভাপতিত্বে ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামানের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের নব-গঠিত কমিটির সভাপতি এবং দৈনিক চাঁদপুর প্রতিদিনের সম্পাদক ও প্রকাশক ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া জীবন, কাজী শাহাদাত, ননব-গঠিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা, সদ্য বিদায়ী সাবেক সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মিলন, সদ্য বিদায়ী সাবেক সাধারণ সম্পাদক এইচএম আহসান উল্লাহ, সিনিয়র সাংবাদিক ও সাবেক অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেন, সাবেক সভাপতি অধ্যাপক জালাল চৌধুরী, শহিদ পাটওয়ারী, শরীফ চৌধুরী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোহেল রুশদী, চাঁদপুর টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আল ইমরান শোভন, চাঁদপুর ফটোজার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি এমএ লতিফ প্রমুখ।
জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, আগের উন্নয়নের ধারা এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। আমাদের ক্যাবিনেটের নির্দেশনা অনুযায়ী এখানে ৩ বছরের একটা কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা। আগের জেলা প্রশাসকের কর্মপরিকল্পনা পর্যালোচনা করে দেখলাম, কিছু কাজ আজ জেলা প্রশাসক করতে পারেন, কিছু পৌরমেয়র করতে পারেন। তিনি বলেন, আমার মূল ফোকাস এলাকার উন্নয়ন, জনগণের উন্নয়ন। তাদের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি যেন ঠিক থাকে, তারা যেন ভালো থাকে। এখানের মানুষের ভালো থাকার জন্য করণীয়টাই মূল কাজ। আগের যে পরিকল্পনা দেখলাম তা খুব ভালো। তবে এর সাথে হয়তো কিছু সংযোজন- বিয়োজন হবে। কিন্তু আগের জেলা প্রশাসকরা মূল যে পরিকল্পনা করে গেছেন সেগুলোকে এগিয়ে নিয়ে যাবো আমরা। এর মধ্যে যেগুলো প্রয়োজন মনে হবে তা বিয়োজন করবো। নতুন কিছু প্রয়োজনে সংযোজন করবো। তিনি বলেন, উন্নয়ন হচ্ছে একটি নিয়মিত প্রক্রিয়া।
তিনি আরো বলেন, আমি নিজেকে কখনোই শুধুমাত্র একজন নারী মনে করিনা। নিজেকে সরকারের একজন কর্মকর্তা-কর্মচারী মনে করি। সরকারের আদেশ এবং নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বদ্ধপরিকর। একজন জনবান্ধব কর্মকর্তা হিসেবে জনগণের সেবা করতে চাই। আমি সব সময় ইতিবাচক চিন্তা করি। এলাকার উন্নয়ন, জনগণের সেবা, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা আমার মূল ভিউ। চাঁদপুরে দায়িত্বকালীন সময় আমি প্রশাসনকে সৎ এবং ভদ্রভাবে পরিচালনা করব।
জেলা প্রশাসক বলেন, চাঁদপুর সম্পর্কে আমার ইতিবাচক ধারণা রয়েছে। এখানকার মানুষ খুবই অতিথিপরায়ন এবং সহযোগিতাপূর্ণ মনোভাবের। নদীপাড়ের মানুষ একটু বেশিই সহনশীল হয়। চাঁদপুরের সাংবাদিকদের মধ্যে যে ঐক্য এবং পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ তা আমাকে মুগ্ধ করেছে।
তিনি আরো বলেন, আমি বিশ্বাস করি গণমাধ্যম একটি গুরুত্বপূর্ণ প্ল্যাটফর্ম। কাজের ক্ষেত্রে এখান থেকে ভালো সহযোগিতা পাওয়া যায়। আজকে আপনাদের সহযোগিতা পূর্ণ মনোভাব এবং পরামর্শ আমার খুবই ভালো লেগেছে। কারো একার পক্ষে কোন কাজে সফল হওয়া যায় না। আমরা যার যার কাজ করব তবে সবার সাথে সবার একটি সুন্দর সমন্বয় থাকতে হবে। তবেই সাফল্য আসবে।
জেলা প্রশাসক বলেন, চাঁদপুরে পর্যটনের অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। এইখানে পর্যটনের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে অনেকেই এগিয়ে এসেছেন। এতে যদি এলাকার উন্নয়ন হয়, বহু মানুষের কর্মসংস্থান হয়, তবে আমার পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা থাকবে। চাঁদপুর কে একটি পর্যটন নগরী করার জন্য আমার যা যা করণীয় তাই করবো।
চাঁদপুর প্রেসক্লাবের নব-গঠিত কমিটির সভাপতি এবং দৈনিক চাঁদপুর প্রতিদিনের সম্পাদক ও প্রকাশক ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী তার বক্তব্যে বলেন, নবাগত জেলা প্রশাসক জেনে খুশি হবেন যে, আমাদের অভিভাবক শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনিও একজন নারী। এখানে কাজ করার চমৎকার পরিবেশ আপনি পাবেন। চাঁদপুরে সাংসবাদিকদের একটিমাত্র প্রেসক্লাব। আপনার বাংলোর পাশেই সাংবদিকদের বাড়ি, অর্থাৎ প্রেসক্লাবের অবস্থান।
তিনি বলেন, চাঁদপুরের সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ। কাজের মাধ্যমে আপনি আমাদের পরিচয় পাবেন। আপনি স্থানীয় পত্রিকাগুলো নিয়মিত পড়বেন। তাহলে এখানকার সমস্যা সম্ভাবনাগুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন। পাশাপাশি সাংবাদিকদের ফোন ধরবেন। কারণ চাঁদপুরের সাংবাদিকরা তথ্য জানার প্রয়োজন ছাড়া কোনো তদবিরের জন্যে ডিসিকে ফোন করেন না। আমরা আজকে যেভাবে আমরা আপনাকে ফুল দিয়ে বরণ করেছি, তেমনিভাবে আপনি যাবার সময়ও যাতে করে একইভাবে আমাদের কাছ থেকে ফুল নিয়ে যেতে পারেন। সেই কাজ আপনি করে যাবেন, বলে আমরা বিশ্বাস করি।চাঁদপুরকে আরো সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে আমরা আপনার সাথে এক হয়ে কাজ করবো।
অনুষ্ঠানের শুরুতেই চাঁদপুরের নবাগত জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশকে চাঁদপুর প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। পরে চাঁদপুর প্রেসক্লাবের ৫০বছর পূর্তি অনুষ্ঠানের শুভেচ্ছা স্মারক তুলে দেন বিদায়ী সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ও নবগঠিত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক সহ অন্যান্য সাংবাদিকগণ।
এসময় চাঁদপুর প্রেসক্লাব, চাঁদপুরে কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *