চাঁদপুরে আ.লীগের ইউনিয়ন ও উপজেলা কমিটিগুলো গঠনের নির্দেশ

বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের দ্বিতীয় দিনের বৈঠক অনুষ্ঠিত
ইব্রাহীম রনি :
চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাথে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের দ্বিতীয় দিনের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার ঢাকায় দলের চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে এ বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে কেন্দ্রীয় নেতারা জেলার নেতাদের মতবিরোধ, কোন্দল নিরসনের জন্য বিভিন্ন বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন। এছাড়া জেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবনার প্রেক্ষিতে মেয়াদোত্তীর্ণ ইউনিয়ন, ওয়ার্ড, উপজেলা পর্যায়ের কমিটিগুলো দ্রুততম সময়ের মধ্যে করার নির্দেশনা দেয়া হয়।
এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল বলেন, সাংগঠনিক বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি বিভিন্ন বিষয় সভায় উঠে আসে। তিনি বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবনার আলোকে দলকে তৃণমূল তথা ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, উপজেলার কমিটিগুলো সঠিকভাবে করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা কমিটি করে কেন্দ্রে জমা দিবো। দলকে সুসংগঠিত করতে হবে। বিএনপি-জামায়াত বা অন্য দল থেকে যারা দলে ভিড়েছেন তাদের বাদ দিয়ে কমিটি করতে হবে। দুর্দিনের ত্যাগী নেতাকর্মীদের নিয়ে দলকে শক্তিশালী করতে হবে।
নদী থেকে বালু উত্তোলন নিয়ে কোন আলোচনা হয়েছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বালু উত্তোলনের বিষয়টি সম্পর্কে বলা হয়েছে, এটি আদালত এবং সংশ্লিষ্টরা দেখবেন। আদালত যে রায় দিবেন সেটি হবে।
জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আলহাজ্ব ইউসুফ গাজী বলেন, আমাদের মাঝে যে সমস্যা ছিল তা সমাধান হয়ে গেছে। দলের স্বার্থে আমরা সবাই মিলেমিশে কাজ করবো। তিনি বলেন, নিয়মানুযায়ী কমিটিগুলো হবে। ইউনিয়ন কমিটি ওয়ার্ড কমিটি করবে, থানা কমিটি ইউনিয়নগুলোর কমিটি করবে। এরপর জেলা সম্মেলন যখন হয় তখন দেখা যাবে।
তিনি আরও বলেন, চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে আমাদের প্রেসিডেন্ট প্রেসে যে কথা বলেছেন সেজন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেছেন।
চাঁদপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান বলেন, আজকের সভায় নিয়ম মাফিক সাংগঠনিক আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হয়েছে। মেয়াদোত্তীর্ণ ইউনিয়ন, ওয়ার্ড কমিটির যেগুলোর সম্মেলন হয়নি সেগুলো উপজেলা ও ইউনিয়ন কমিটি করবে। এগুলো শেষ হলে উপজেলা পর্যায়ের কমিটিগুলো গঠন হবে। এ কাজটি সুচারুরূপে এবং দ্রুততার সাথে করার জন্য জেলা কমিটির একটি মনিটরিং কমিটি থাকবে প্রতিটি উপজেলায়। আর যেসব উপজেলায় ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন কমিটি হয়ে গেছে সেগুলো যথাশীঘ্র সম্ভব সম্মেলন শেষ করা। এগুলো শেষ করার পর জেলা আওয়ামী লীগের শেষ করা হবে।
তিনি আরও বলেন, আমাদের মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের মনোমালিন্যের যে বিষয়টি সম্পর্কে যেমন দীপু আপাকে নিয়ে কটাক্ষ করা- এ বিষয়ে নাছির ভাই বলেছেন, আমিতো ওনার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ নেই আমার। এরপরও মিডিয়ার সামনে আমার বক্তব্য দিতে গিয়ে যদি কারো ইয়েতে লেগে থাকে বা বলে থাকি সেটি আমার বলা ঠিক হয়নি জেলা আওয়ামী লীগের প্রেসিডেন্ট হিসেবে। এ জন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেছেন। বিষয়টি ভদ্রভাবেই নিস্পত্তি হয়ে গেছে।
আর কোন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ব্যক্তি পর্যায়ের বিষয়ে কিছু কথা উঠেছে- কে কত টাকার মালিক, কে কিভাবে খায়। তবে এগুলোতো দলীয় কোন বিষয় না। কেউ অপরাধ করলে আইনগতভাবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবে। এছাড়া বালু উত্তোলন সম্পর্কেও কথা উঠেছে। এটার জন্য নদী রক্ষা কমিটি, পানি উন্নয়ন বোর্ড, বিআইডাব্লিউটিএ আছে। যদি আইনসঙ্গতভাবে হয় তাহলে চলবে, না হলে বন্ধ হবে।
উল্লেখ্য, প্রথম দিনের সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, সারাদেশের তৃণমূল আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করতে হবে। তৃণমূলকে সংগঠিত করার কোনো বিকল্প নেই। এর মাধ্যমেই আগামী জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিজয় সুনিশ্চিত করতে হবে। আওয়ামী লীগের এই কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, বাংলাদেশে বিএনপির অপরাজনীতি চিরতরে নিশ্চিহ্ন করতে হবে।
তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগের আগামী জাতীয় সম্মেলনের আগেই সারাদেশে ওয়ার্ড ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা সম্মেলন শেষ করা হবে। আমাদের টার্গেট রয়েছে চলতি মার্চের মধ্যে ওয়ার্ড ইউনিয়ন সম্মেলন শেষ করা হবে। এরপর এপ্রিলে রোজার মাস ও ঈদের পরে মে মাসের মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ জেলা সম্মেলন কার্যক্রম শেষ করা হবে।
কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের সমন্বায়ক মাহবুব-উল-আলম হানিফ এমপিদর সভাপতিত্বে এবং জাতীয় সংসদের হুইপ ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপিদর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামছুল আলম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক সেলিম মাহমুদ, চাঁদপুর-২ আসনের সাংসদ অ্যাডভোকেট নুরুল আমিন রুহুল, চাঁদপুর-২ আসনের সাংসদ মোঃ শফিকুর রহমান, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাসির উদ্দীন আহম্মেদ, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযুদ্ধা আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, সহ-সভাপতি ইউসুফ গাজী, ডা. জে আর ওয়াদুদ টিপু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহসহ নৌকা মার্কা নিয়ে নির্বাচিত পৌর মেয়র, নৌকা মার্কা নিয়ে নির্বাচিত সকল উপজেলার চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.