চাঁদপুরে তৈরি ফ্রান্সের ৩২ কিলোমিটার দীর্ঘ পতাকা ফেরত দেয়ার দাবি ক্ষতিগ্রস্ত প্রবাসীর

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ফ্রান্সের স্বাধীনতা দিবস ও বিশ্বকাপ উপলক্ষে ফুটবল ফেডারেশনকে উপহার দেয়ার জন্য বাংলাদেশে বানানো ৩২ কিলোমিটার দীর্ঘ পতাকার ফেরত দেয়ার দাবি জানিয়েছেন এটির নির্মাতা প্রবাসী আলী নাজির ও তার স্ত্রী রোজিনা বেগম। পতাকা তৈরির অনুমোদন থাকলেও গত ৮ মাস আগে নির্মিত ৩২ কিলোমিটার দীর্ঘ পতাকা জব্দ করে পুলিশ। দীর্ঘ দিন হলেও এখনো তারা ফেরত পায়নি পতাকাটি। উল্টো স্থানীয় মেম্বার ও তার সহযোগীদের মামলা-হামলার শিকার হচ্ছে পরিবারটি। এতে করে পতাকাটি ফ্রান্সকে পতাকা দিতে পারছেন না বাংলাদেশী এ পরিবার। এমনকি জব্দকৃত পতাকা সম্পর্কে এখন তেমন কিছু বলতে পারছে না স্থানীয় পুলিশ।
জব্দকৃত পতাকা ফেরত ও হামলা-মামলা থেকে হয়রানি থেকে মুক্তি পেতে ২৭ জুন রোববার চাঁদপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান রোজিনা বেগম।
লিখিত অভিযোগে তিনি জানান, বিশ্বকাপ উপলক্ষে ফ্রান্সকে ৫০ কিলোমিটার দীর্ঘ একটি পতাকা উপহার দেয়ার উদ্যোগ নেন চাঁদপুর সদর উপজেলার আশিকাটি ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামের প্রবাসী আলী নাজির মিজি। এর জন্য তিনি ববিনে ফ্রি পিকচারের ডাইরেক্টর বরাবর আবেদন করলে তা মঞ্জুর করা হয়। পরে তিনি দেশে এসে ওই পাতাকা নির্মাণের সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। এটি নির্মাণের দায়িত্ব দেন তার স্ত্রী রোজিনা আক্তারকে। তিনি লাল-নীল-সাদা কাপড়ের ১৪ কিলোমিটার দীর্ঘ একখন্ড পতাকা তৈরি করে ফ্রান্সে পাঠান ২০১৮ সালে। বাকী ৩৬ কিলোমিটারের মধ্যে ৩২ কিলোমিটারের কাজ সম্পন্ন হয় গত বছরের ৩১ অক্টোবর। এই মধ্যে ধর্মীয় উত্তেজনাকে পুজি করে পতাকা নির্মাতা পরিবারের কাছে ৫ লাখ টাকা চাদা দাবি করে স্থানীয় মেম্বার আলমগীর। তা না দেয়ায় তাদের উপর চালানো হয় হামলা। পরে বিষয়টি সদর মডেল থানায় জানালে পুলিশ গিয়ে ঘটনাস্থল থেকে ৩২ কিলোমিটার পতাকার কাপড় জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে। আটক করা হয় পতাকা নির্মাণ কাজে জড়িত ৩ জনকে। পরে তাদের ছেড়ে দিলেও পতাকা ফেরত দেয়নি পুলিশ। এ ঘটনায় মেম্বারের বিরুদ্ধে চাঁদপুর জজকোর্টে নারী নির্যাতন আইনে মামলা করলে আবারও হামলা চালানো হয় ওই পরিবারটি উপর। পরে ক্ষতিপূরণ ও চাদাবাজির অভিযোগে আরও একটি মামলা করেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার।
ক্ষতিগ্রস্ত রোজিনা বলেন, দীর্ঘ ৪ বছর ধরে পতাকাটি নির্মাণের কাজ করি। ১৪ কিলোমিটার ফ্রান্সে পাঠানো হয়েছে। আরও ৩২ কিলোমিটার পুরোপুরি তৈরি হয়েছিল। কিন্তু ষড়যন্ত্রের কারণে পুলিশ তা নিয়ে আসে। এখন আমরা যদি পতাকা নির্ধারিত সময় পাঠাতে না পারি তাহলে ফ্রান্সে সুনাম ক্ষুন্ন হবে বাংলাদেশের। আমরা ৮০ লাখ টাকার ক্ষতির মুখে পড়বো।
ফ্রান্স প্রবাসী আলী নাজির মিজি বলেন, ২০১৯ সালে পতাকা নির্মাণের বিষয়ে ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে বিস্তারিত জানাই এবং পতাকাটি গত বছর উদ্বোধনের কথা ছিল। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে পতাকাটি উদ্বোধন করা হয়নি। এর মধ্যে গত বছরের জুন মাস থেকে শুরু করে অক্টোবর পর্যন্ত আমরা আরও ৩২ কিলোমিটার পতাকা নির্মাণের কাজ শেষ করি। কিন্তু স্থানীয় কয়েকন সন্ত্রাসীকে চাদা না দেয়ায় পতাকাটির উপর হামলা চালায়। পরে সে সময়ের ওসি নাসিম উদ্দিন দুটি হাই পাওয়ার সেলাই মেশিনসহ পতাকাটি জব্দ করেন। এছাড়াও বাংলাদেশের ১ হাজার জাতীয় পাতাকাও জব্দ করে নিয়ে আসেন। ওসির সহযোগিতায় তারা আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলাও করেছে।
তিনি বলেন, ওসি সাহেব কোন আইনের বলে এ কাজটি করেছেন। এ পতাকাটি দেয়ার উদ্দেশ্য ফ্রান্সের মাটিতে বাংলাদেশের সম্মান উজ্জ্বল করা। তারা জাতীয় পাতাকা নিয়ে যে ধরনের অপরাধ করেছেন তা আমি এখনো ফ্রান্স সরকারকে জানাইনি। কারণ, আমি দেশের সুনাম ক্ষুন্ন করতে চাই না।
তিনি জানান, পতাকাটির আরও ৪ কিলোমিটার কাজ বাকি আছে। পুরো পতাকাটি নির্মাণ শেষ হলে চট্টগ্রাম থেকে শীপযোগে ফ্রান্সে পাঠাতে সময় লাগবে ৪৫ দিন।
এ অবস্থায় পতাকা ফেরত পেতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও পুলিশের আইজিপি ড. বেনজির আহমেদ স্যারের সহযোগিতা কামনা করছি। তিনি বলেন, আমার দাবি হচ্ছে- ৮০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণসহ জাতীয় পতাকা ফেরত দিতে হবে, ৪ মামলার সকল আসামীকে গ্রেফতার করে শাস্তির আওতায় আনতে হবে এবং আমাদের নামে দেয়া মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে।
এ বিষয়ে চাঁদপুর মডেল থানার বর্তমান ওসি মো. আব্দুর রশিদ মিয়া বলেন, আমাদের পুরো সেটআপ চেঞ্জ হয়েছে। তাই পতাকার বিষয়ে তেমন কিছু এখন বলতে পারছি না। খোজ নিয়ে দেখতে হবে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী, সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি কাজী শাহাদাত, বিএম হান্নান, শরীফ চৌধুরী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন মিলন, সোহেল রুশদী, এইচএম আহসান উল্যাহ, টেলিভিশন ফোরামের সভাপতি আল ইমরান শোভনসহ জেলায় কর্মরত বিভিন্ন পর্যায়ের সাংবাদিকবৃন্দ।
উল্লেখ্য, পতাকা জব্দের পর তৎকালিন ওসি নাসিম উদ্দিন জানান, ‘ওই পরিবারের এক সদস্য ফ্রান্সে সার্কাস দেখাতেন। বিশ্বকাপ এলে তারা সেখানে পতাকা বিক্রি করেন। চলমান ফ্রান্স ইস্যুতে যাতে বিষয়টি নিয়ে কোনও বিভ্রান্তি তৈরি না হয়, তাই খন্ড খণ্ড কাপড়গুলো দুটি পিকআপে করে চাঁদপুর পুলিশ লাইনসে নিয়ে রেখেছি। পরে ঊর্ধ্বতনের নির্দেশে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’
তিনি আরও জানান, পতাকা বহু আগে থেকেই বানানো হচ্ছিল। এর আগেও ওই পরিবারটি পতাকা ফ্রান্সে পাঠিয়েছে। এটি কোনও অপরাধ নয় এবং অবৈধও নয়। তবুও যাতে কোনও বিভ্রান্তি সৃষ্টি না হয় সেজন্যই ওই কাপড় থানা হেফাজতে এনে রাখা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *