চাঁদপুরে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে পথচারী নিহতের পর যুবলীগের ৪ জনকে বহিস্কার, কমিটি বিলুপ্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুর পৌর এলাকার পুরাণবাজারে মাদক ব্যবসা ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে পথচারী নিহতের একদিন পর যুবলীগের ৪ জনকে বহিস্কার করেছে কেন্দ্রীয় কমিটি। ১ জুলাই বুধবার কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
বহিস্কৃতরা হচ্ছেন : চাঁদপুর পৌর যুবলীগের ১নং ওয়ার্ডের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জহির খান, ২নং ওয়ার্ডের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়াসিন, দপ্তর সম্পাদক মো. মাসুদ গাজী ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মো. রাসেল পাটওয়ারী। সেই সাথে পৌর যুবলীগের ১নং ও ২নং ওয়ার্ড কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ একটি সুসংগঠিত ও সু-শৃঙ্খল সংগঠন। বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সম্মানিত চেয়ারম্যান শেফ ফজলে শামস পরশ-এর নির্দেশে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে চাঁদপুর জেলার অন্তর্গত চাঁদপুর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জহির খান, ২নং ওয়ার্ডের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়াসিন, দপ্তর সম্পাদক মো. মাসুদ গাজী ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মো. রাসেল পাটওয়ারীকে বহিস্কার করা হলো।
এর আগে মাদক বিক্রি ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে পুরাণবাজার ১নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জহিরের সাথে স্থানীয় হেলালের ঝগড়া হয়। পরে হেলালের পক্ষে ২নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত পাটওয়ারীর ছোট ভাই রাসেল এবং জহির গ্রুপের সাথে সংঘর্ষ হয়। এতে জহির গ্রুপের সবুজ খান (২৪) নামের এক যুবককে কুপিয়ে আহাত করা হয়। ওই ঘটনার রেশ ধরেই সোমবার সন্ধ্যায় দুটি গ্রুপের দফায় দফায় মারামারি হয়। এরই মধ্যে রাত ৯টার দিকে হোটেলকর্মী শামীম গাজী বাসায় ফেরার পথে পুরাণবাজারের মেয়র রোডের মোড়ে অন্ধকারের মধ্যে অপরপক্ষের লোক মনে করে একদল যুবক লাঠিসোটা দিয়ে বেদম মারধর করে। পরে ওই হোটেলকর্মীকে গুরুতর অবস্থায় চাঁদপুর সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসাশেষে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে ৩০ জুন মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে শামীম মারা যায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *