চাঁদপুরে লকডাউনে কড়া নজরদারি, মাঠে সেনাবাহিনী বিজিবি পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
শুক্রবার (২৩ জুলাই) কঠোর বিধিনিষেধের (লকডাউনের) প্রথম দিনে কঠোর অবস্থানে রয়েছে জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টরা। মাঠে রয়েছে সেনাবাহিনী, বিজিবি, পুলিশ সদস্যরা। সকাল থেকেই ভ্রাম্যমাণ আদালত চাঁদপুর শহর ও উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অবস্থান করতে দেখা গেছে।


এদিকে দুপুর ১২ টার দিকে সড়কে যানবাহন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ চলছে কিনা এবং অপ্রয়োজনে মানুষজন চলাফেরা, শপিংমল, মার্কেট, বন্ধ রয়েছে কিনা, তা দেখতে জেলা প্রশাসক অন্জনা খান মজলিশ, পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ বের হন। প্রথমে তারা বের হয়ে বাসস্ট্যান্ড এলাকা হয়ে কালিবাড়ি শপথ চত্বরে আসেন। এখানে তারা কয়েকটি রিক্সার গতি রোধ করেন, যেগুলোর মধ্যে ১/২ জনের বেশি লোকজনকে নামিয়ে দেন এবং প্রথাম পর্যায়ে এধরনের যাত্রী ও চালককে স্পষ্ট বলে দেন, রিক্সা চলার অনুমতি আছে কিন্তু তার মানে এই নয় যে, এক রিক্সায় আপনারা ঘুরে বেড়াবেন ৩/৪ জন। ১ জন কিংবা পরিবারের সদস্য হলে এমন ২ জন রিক্সায় প্রয়োজনে আসা যাওয়া করতে পারেন। কিন্তু এর ব্যতিক্রম হবে তাহলে রিক্সার যাত্রীও জরিমানা গুণবেন। আর ঐসব রিক্সাও আটকে দেয়া হবে। আর অপ্রয়োজনে রাস্তায় ঘোরাঘুরি করা লোকজনকে রাস্তায় নামলে বিধান অনুযায়ী শাস্তি বা জরিমানা। প্রয়োজনে ঘরের বাইরে তো অবশ্যই মাস্ক! অন্জনা খান মজলিশ বলেন, সেনা, পুলিশ, বিজিবি, আনসারসহ অন্যান্য নিরাপত্তা বাহিনী মাঠে আছেন। চলবে মোবাইল কোর্ট। গ্রাম শহর বন্দর সব জায়গায় আমাদের লোকদের অবস্থান। আমাদের অনেক অফিসার ষ্টাফ আক্রান্ত। গতকালও আমার একজন এডিসি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। পুলিশ ভাইরাও কাজ করতে গিয়ে আক্রান্তের শিকার হচ্ছেন। কিন্তু তাই বলে আমরা মনোবল হারাবো না, আমাদের সরকরি বিধিনিষেধ মানাতে রাস্তায় অবস্থান নিতেই হবে। তিনি বলেন, নিজে বাঁচুন অপরকে বাঁচতে দেন। যারা টিকা নেননি তারা নিয়মমত খুব শীঘ্রই টিকা নেন। আর আপনারা যারা সচেতন শহরে গ্রামে থাকেন, জনপ্রতিনিধি, সুশীল, তারা সচেতনতামূলক প্রচারটা করুন।


পরে তারা ওয়ারল্যাস মোড় এবং বাবুরহাট মোড় পরিদর্শন করেন। বেশ কয়েলকটি জায়গায় চেক পোষ্ট রয়েছে। সড়কে অন্যান্য গণপরিবহন না চলায় তারা সন্তাস প্রকাশ করেন।
অন্জনা খান মজলিশ বলেন, সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।
পুলিশ সুপার৷ মিলন মাহমুদ বলেন, এই সমযটা দেখলাম। আমরা যে কোন সময়ই রাস্তায় বেরিয়ে পড়বো। সেনা পুলিশ বিজিবি আনসার সবাই কাজ করছেন।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক( সার্বিক) ইমতিয়াজ আহমেদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায়, চাঁদপুর প্রেসক্লাব সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী, এনডিসিসহ মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকারী একাধিক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ ও সংবাদকর্মিরা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *