চাঁদপুরে লঞ্চের কেবিনে তরুণীর লাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুরে যাত্রীবাহী লঞ্চ এমভি আব-এ জমজম লঞ্চের ২য় তলার স্টাফ কেবিন থেকে অজ্ঞাত তরুণীর [২০] লাশ উদ্ধার করেছে নৌপুলিশ। গতকাল ২২ অক্টোবর বৃহস্পতিবার দুপুরে চাঁদপুর লঞ্চঘাটে জমজম লঞ্চের ইঞ্জিন গিজারের কক্ষের কেবিন থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। এই কক্ষটি লঞ্চের গিজার মোঃ সুজন মোল্লা, মোঃ রাসেল ও মাসুম ব্যবহার করতেন।


এই ঘটনার খবর শুনে দুপুর ২টায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) স্নিগ্ধা সরকার, চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাসিম উদ্দিন, চাঁদপুর নৌ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জহিরুল হক পরিদর্শনে আসেন।
গিজার মোঃ সুজন মোল্লা জানায়, বুধবার (২১ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১১টায় চাঁদপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে লঞ্চটি। সাড়ে ৬শ’ টাকার বিনিময়ে আমি একটি যুবক ও মেয়েকে কেবিনটি ভাড়া দেই। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টায় কেবিনটি পরিস্কার করতে গেলে কক্ষটি তালা বন্ধ পাই। পরে টিকেট কাউন্টারে গিয়ে খবর নিলে কোন চাবি দেওয়া হয় নি বলে জানা যায়। পরে কেবিন খুললে তরুনীর লাশ আমরা দেখতে পাই।
চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) স্নিগ্ধা সরকার বলেন, আমরা প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি, গত রাতে ঢাকা থেকে একজন পুরুষ আর এ মেয়েটি লঞ্চে উঠে। পরে লঞ্চের কেবিনে উঠেন তারা। যে কেবিনে উঠেছেন সেটি লঞ্চের চালকদের কেবিন। তারা সেটি অনেক সময় ভাড়াও দেন।
তিনি বলেন, পরে আজ লঞ্চের স্টাফরা ওই কেবিনের দরজা বন্ধ অবস্থায় দেখেন। এরপর বিষয়টি পুলিশকে জানালে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি।
তিনি বলেন, তরুণীর গায়ে থাকা ফিতা গলায় পেচিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সঙ্গে থাকা ব্যক্তি পালিয়ে গেছেন। যেহেতু যাত্রী হিসেবে এক ব্যক্তি কক্ষটি ভাড়া নিয়েছে। তাই ধারণা করা হচ্ছে হত্যাটি একজনই করতে পারে। তবে ধর্ষণের পর হত্যা হয়েছে কিনা তা ময়না তদন্তের পর জানা যাবে। এ ঘটনায় লঞ্চের ৩ জন স্টাফকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.