প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেলো চাঁদপুরের অন্ধ নাজমা বেগম

আশিক বিন রহিম :
অবশেষে অন্ধ নাজমা বেগমের মাথাগোঁজার মতো একটা ঘর হলো। এমন খুশিতে তাই আবেগে আপ্লুত স্বামীপরিত্যক্তা এ দুই সন্তানের জননী। তার চোখে কান্না, মুখে হাসি। এমন দৃশ্যে আনন্দিত উপস্থিত অতিথিবৃন্দ এবং এলাকাবাসী।
গতকাল ৩ জুন বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় এমনই এক আবেগঘণ পরিবেশের সৃষ্টি হয় চাঁদপুরে সদর উপজেলার লক্ষীপুর মডেল ইউনিয়নে। এইদিন চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের অর্থায়নে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের হিসেবে ঘরহীন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী নাজমা বেগমের হাতে তুলে দেয়া হয় নতুন ঘরের চাবি। নাজমা বেগম ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের শ্রীরামপুরের বাসিন্দা।
দৃষ্টিহীন নাজমা বেগম বলেন, অন্ধ বইলা জামাই আমাগো ছাইর চইলা গেছে। নিজের একটা ঘর নাই বইলান, দুইডা পোলা-মাইয়া লইয়া এতোদিন বৃষ্টিত ভিজছি, রইদে শুখাাইছি । নিজেগো নতুন ঘর পাইয়া আমরা অনেক খুশি। এখন আর আমার পোলা-মাইয়ার রইদ-বৃষ্টিতে কষ্ট করতে হইবো না। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া করি।
দৃষ্টিহীন নাজমা বেগমের বাবা রিকশাচালক আব্দুল রকমান জানান, ছোটবেলায় অজানা রোগে আক্রান্ত হয় নাজমা বেগম। টাকার অভাবে সময় মতে চিকিৎসা করাতে না পারায়, চিরতরে অন্ধত্বকে বরণ করতে হয় নাজমা বেগমের। তাকে বিয়ে দেওয়ার হলেও হতভাগী স্বামী তাকে দুই সন্তানসহ ফেলে চলে যায়। সন্তানদের নিয়ে ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করছে সে। কোনরকম খড়কুটা দিয়ে তৈরী ঘরে থাকতো। এই ঘরটি পাওয়ার তাদের মাথা গোঁজার মতো ঠাই হলো।
অন্ধ নাজমাকে নতুন ঘর করে দেয়ার সময় উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের উদ্দেশ্যে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ এবং সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু নঈম দুলাল পাটওয়ারী বলেন, ‘জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে এবং চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের অর্থায়ণে ভূমিহীন ও গৃহহীন অন্ধ নাজমা বেগমকে এই ঘরটি উপহার হিসেবে করে দেয়া হয়েছে। আজ আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে নতু ঘরের চাবি তুলে বুঝিয়ে দেওয়া হলো। আমরা তার পরিবারের সফলতা কামনা করছি।
চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের এ দুই শীর্ষ কাণ্ডারি আরো বলেন, আমরা দৃঢ় প্রত্যয়ে বলতে চাই বঙ্গবন্ধু কন্যা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ‘একটি পরিবারও গৃহহীন থাকবে না’ এই কর্মসূচি সফল এবং স্বার্থকভাবে এগিয়ে চলছে। এ কর্মসূচির মাধ্যমে পর্যায়ক্রমে প্রতিটি অসহায় গৃহহীন পরিবারকে ঘর করে দেওয়া হবে।’
এ সময় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জাহিদ হাসান, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আব্দুর রব ভূঁইয়া, আব্দুর রশীদ সরদার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জহিরুল ইসলাম, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. রুহুল আমিন, দপ্তর সম্পাদক শাহ আলম, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক নুরুল ইসলাম মিয়াজী, আওয়ামী লীগ নেতা রফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি মাহবুবুর রহমান, চাঁদপুর সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বয়ক মো. শফিক গাজীসহ বিভিন্ন পর্যায়ের দলীয় ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *