মতলবে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে থানায় পাঁচ জনের জিডি

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান (ভাইস চেয়ারম্যান) মবিন সুজনের বিরুদ্ধে চাকরি দেওয়া ও সরকারি ঘর দেয়ার নাম করে টাকা নেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে মতলব দক্ষিণ থানায় জিডি করেছেন পাঁচ ব্যক্তি (জিডি নং-১০২০)। জিডিতে উপজেলার নারায়নপুর ইউনিয়নের ৭, ৮, ৯ নং ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার নাসিমা বেগমসহ কাউসার আলম পান্না (পিতা-মজিবুর রহমান) ও নারায়ন মজুমদারকে বিবাদী করা হয়।

গত ২৯ এপ্রিল এ জিডিগুলো করেন, উপজেলার নায়েরগাঁও ইউনিয়নের পাটন গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক তুহিন ফাতেমা, নারায়নপুর ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের রিক্সাচালক মো; জাহাঙ্গির, একই ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামের রিক্সাচালক মো: ছানাউল্লাহ, একই গ্রামের কৃষক মো: সুবহান ও রিক্সাচালক মো: হাকিম।

জিডিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক তুহিন ফাতেমা উল্লেখ করেন, বিগত ৩ বছর পর্ব মো: মবিন সুজন (বর্তমানে উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান) আমার ছেলেকে চাকুরি দেবে বলে দুইলক্ষ ত্রিশ হাজার টাকা নেয়। কিন্তু সে অদ্যবধি চাকুরি তো দেয়নি টাকা চাইলে আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। বর্তমানে আমার পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

কালিকাপুর গ্রামের রিক্সাচালক মো; জাহাঙ্গির উল্লেখ করেন, বিগত ৩ বছর আগে নারায়নপুর ইউনিয়নের মহিলা মেম্বার নাসিমা বেগম দালান ঘর দিবেবলে ৩০ হাজার টাকা নেয়। কিন্তু সে কিছুদিন আগে আমাকে সরকারি টিনের ঘর দিয়ে বলে আপাতত এই ঘরে থাক, পরে দালান ঘর দিব । কিন্তু সে দালান ঘর না দিয়ে বর্তমানে সে মো: মবিন সুজনকে (বর্তমানে উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান) দিয়ে আমাকে পুলিশের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। বর্তমানে আমার পরিবার নিরাপত্তহীনতায় ভুগচ্ছে। গোবিন্দপুর গ্রামের রিক্সাচালক মো: ছানাউল্লাহ উল্লেখ করেন, নারায়নপুর ইউনিয়নের ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার নাসিমা বেগম চাররুমের দালান ঘর দেয়ার নাম করে ভাইস চেয়ারম্যান মবিন সুজনকে দিবে বলে প্রথমে ৩০হাজার টাকা নেয় এবং এরপর বিভিন্ন সময়ে আরো ২০ হাজার টাকা নেয়। পরর্বতীতে একটি দালান ঘর দিলেও উক্ত ঘরের কন্ট্রাক্টর কাউসার আলম পান্না এলাকার একটি স্কুল ঘরের পুরাতন ইট দিয়ে কাজ শুরু করে এবং ৩০ বস্তা সিমেন্ট দাবী করে। আমি সিমেন্ট কিনেনা দেয়ায় ঘরের কাজ না করে বিভিন্ন ধরনের কথাবার্তা বলছে এবং ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। বর্তমানে আমার পরিবার নিরাপত্তহীনতায় ভুগচ্ছে।

একই গ্রামের কৃষক মো: সোহান তার জিডিতে উল্লেখ করেন, ভাইস চেয়ারম্যান মো: মবিন সুজনকে (বর্তমানে উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান) মবিন সুজন বিগত ৮ মাস আগে ওয়ার্ডের মেম্বার শাইজদ্দিন ঢালীর মাধ্যমে তিনমাসের মধ্যে তিনরুমের দালান ঘর দিবে বলে আমার কাছ থেকে ৪৮ হাজার চাইলে আমি ১৫ দিনের মধ্যে দিয়ে দেই। কিন্তু বিভিন্ন সময় নিতে নিতে ৬ মাস পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ‘জমি আছে ঘর নাই’ এমন ব্যক্তিদের দালান ঘর আসে। সেখান থেকে আমাকে একটি ঘর দেয় কিন্তু খরচ বাবদ আরো ১৬ হাজার টাকাসহ ৬৪ হাজার টাকা নেয়। এ ঘর নির্মানে কন্ট্রাক্টর কাউসার আলম পান্না স্কুলের পুরাতন ইট দিয়ে কাজ শুরু করে এবং ৩৫ বস্তা সিমেন্ট দাবি করে। কিন্তু আমি সিমেন্ট দিব না জানালে সে কাজ বন্ধ রাখে এবং আমাকে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে এতে আমি ও আমার পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

গোবিন্দপুর গ্রামের রিক্সাচালক মো: হাকিম তার জিডিতে উল্লেখ করেন, ইউপি মেম্বার শাইজদ্দিন ঢালীর মাধ্যমে ভাইস চেয়ারম্যান মো: মবিন সুজনকে (বর্তমানে উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান) মো: মবিন সুজনকে আট মাস পূর্বে একটি টিনের ঘর দিবে বলে ১৯ হাজার টাকা নেয়। পববর্তীতে একটি ঘর দিলে ও মালামাল ক্রয়ের মাধ্যমে আরো ১০ হাজার টাকা খরচ করায়। কিন্তু আমি পরে জানতে পারি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিনামূল্যে এ ঘর দিয়েছেন। এমতাবস্তায় আমি কিছু বললে আমাকে ভয়ভীতি দেখায়।

ভুক্তভুগী গোবিন্দপুর গ্রামের রিক্সাচালক মো: ছানাউল্লাহ, যথাযথ কতৃপক্ষসহ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে ভাইস চেয়ারম্যান (বর্তমানে উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান) মবিন সুজনসহ সংশ্লিষ্ট এ সব ব্যক্তিদের এরকম চাদাবাজী ও অনিয়মের উপযুক্ত বিচার দাবী করেন।

এ ব্যাপরে মতলব দক্ষিণ থানার অফিসার ইন-চার্জ স্বপন কুমার আইচ বলেন, তাদের অভিযোগ পেয়েছি, জিডি হিসেবে গ্রহন করা হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

এ বিষয়ে উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ মুবিন সুজনবলেন, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হওয়ার পর থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার ও চাঁদপুর-২ আসনের সাংসদ সদস্য আলহাজ্ব অ্যাডভোকেট নুরুল আমিন রুহুল এমপির নির্দেশনায় বর্তমান পরিস্থিতিতে দিন রাত কাজ করে আসছি। আমার রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মকান্ডে ইশান্বিত হয়ে আমার ও আমার পরিবারকে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করছে একটি কুচক্রী মহল। আমি শীঘ্রই তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা নিবো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.