লকডাউন পরবর্তীসময়ে শিক্ষকগণ শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি পৌঁছাবে : জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্তৃপক্ষের আয়োজনে ও সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), চাঁদপুরের সহযোগিতায় “করোনাকালীন প্রাথমিক শিক্ষাঃ চ্যালেঞ্জ ও করণীয়” শীর্ষক ভার্চুয়াল মতবিনিময় সভা গতকাল ২০ মে ২০২১ অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন সনাক সভাপতি শাহানারা বেগম। মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ সাহাব উদ্দিন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সনাকের প্রাক্তন সভাপতি কাজী শাহাদাত।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ সাহাব উদ্দিন বলেন, করোনাকালীন সংকটেও শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের সাথে প্রাথমিক শিক্ষা কর্তৃপক্ষের যোগাযোগ অব্যাহত আছে। এখন পর্যন্ত আমরা যতটুকু পারছি যোগাযোগ রাখছি। আমরা এ যোগাযোগ আরো বৃদ্ধি করবো। লকডাউন পরবর্তীসময়ে আমরা শিক্ষার্থীদের বাড়ী বাড়ী পৌছাবো। শিক্ষার্থীদের খোঁজ খবর নেওয়া ও অনলাইন ক্লাশ নেওয়ার ক্ষেত্রে শিক্ষকদের আন্তরিকতার শেষ নেই। তিনি বলেন কভিড সময়ে প্রাইমারি শিক্ষা নিয়ে অনেকের জানার উৎসাহ আছে। আমাদের তথ্য কর্মকর্তার কাছে তারা নিয়মানুযায়ী প্রয়োজনীয় তথ্য পেতে পারে। সনাক-চাঁদপুর প্রাথমিক শিক্ষার জন্য অনেক অবদান রেখে যাচ্ছে। আমাদের জন্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। আশা করছি আগামিতে আমরা সনাকের সহযোগিতা পাব। আজকের মতবিনিময় সভায় আমরা অনেকগুলো মতামত ও শুপারিশ পেয়েছি। এগুলো আমরা বিবেচনা করবো। তিনি সনাক-টিআইবি’র এধরণের ভার্চুয়াল সভা আয়োজন করার জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।
সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ শাহিনুল ইসলাম মজুমদার বলেন, করোনাকালীন সময়েও বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম চলমান আছে। অমরা শিক্ষার্থীদের চাঙ্গা রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমরা জেলার ১১৫৬টি বিদ্যালয়ে গুগল মিটের মাধ্যমে পাঠদান করার পদক্ষেপ নিয়েছি যা আগামী সপ্তাহের মধ্যে শুরু হবে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাজমা বেগম বলেন, সরকারী সিদ্ধান্ত অনুযায়ি আমরা শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ রেখে যাচ্ছি। এখন থেে শিক্ষকরা দলে দলে ভাগ হয়ে শিক্ষার্থীদের খোজ খবর নেবে। তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে অভিভাবকদেরকেও বড় ভূমিকা রাখতে হবে। তারাও শিক্ষার্থীদেরকে বিভিন্নভাবে উদ্বুদ্ধ করবে।
স্বাগত বক্তব্যে সনাকের প্রাক্তন সভাপতি ও সদস্য কাজী শাহাদাত বলেন, এই সংকটকালীন মূহুর্তের মধ্যে থেকেও শিশুদের পাঠের সাথে সম্পৃক্ত রাখার জন্য জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্তৃপক্ষ শিক্ষক-অভিভাবক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষা করার লক্ষ্যে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। আমরা আশা করছি এতে করে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থায় ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে পারবে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় গুরুত্ব¡পূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। আমরা প্রাথমিক শিক্ষা কর্তৃপক্ষের সহায়তায় বেশকিছু পাইলটিং কাজ করেছি যা অত্যন্ত সফল হয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে অ্যাকটিভ মাদার্স ফোরাম। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মহোদয় নিজে হোস্ট হয়ে সনাক-টিআইবি’র সাথে এধরণের ভার্চুয়াল সভা আয়োজন করার জন্য তিনি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।
সভাপতির বক্তব্যে সনাক সভাপতি শাহানারা বেগম বলেন, করোনাকালীন সংকটেও কিভাবে শিক্ষার্থীদের পাঠে, খেলাধুলায় ও অন্যান্য শিক্ষামূলক কর্মকান্ডে মনোনিবেশ করানো যায় সেদিকে যেভাবে খেয়াল রাখছেন তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। এই সংকটময় মুহূর্তেও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের সাথে যোগাযোগ করে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, এই করোনাকালীন সময়েও প্রাথমিক শিক্ষা কর্তৃপক্ষের এধরণের উদ্যোগ ও চিত্র দেখে আমরা সত্যিই আনন্দিত।
সনাকের সাবেক সভাপতি অধ্যক্ষ মোঃ মোশারেফ হোসেন বলেন, উর্ধতন কর্তৃপক্ষের মনিটরিং শিক্ষা কার্যক্রমকে আরও সচল রাখে বলে আমি মনে করি। তথ্য প্রযুক্তিতে আমরা অনেক এগিয়ে গেলেও সত্যিকারভাবে আমরা প্রকৃত শিক্ষা থেকে অনেক পিছিয়ে পড়েছি। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মহোদয়ের নেতৃত্বে চাঁদপুরের প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা আরও এগিয়ে যাবে বলে তিনি প্রত্যাশা করেন। সনাকের সহ-সভাপতি ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়া কোভিডকালে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বস্থ্যের বিষয়টি বিবেচনা করে পাঠদানের বিষয়ে কর্তৃপক্ষের প্রতি আহবান জানান।
করোনাকালীন সংকট মোকাবেলায় শিক্ষা কর্তৃপক্ষের উদ্যোগ, বাস্তবায়ন এবং চ্যালেঞ্জ বিষয়ে উম্মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন চাঁদপুর সদর উপজেলার সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ দেলোয়ার হোসেন, মোঃ আব্দুল হাই ও মোঃ ইলিয়াস হোসেন। তারা বলেন, শিক্ষা অধিদপ্তরের ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মহোদয়ের নির্দেশনা মোতাবেক আমরা শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া সচল রাখার জন্য ও পাঠ কার্যক্রমে আরও উৎসাহিত করার জন্য বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছি। তারা বলেন, স্কুলের প্রত্যক্ষ পাঠদান বন্ধ থাকলেও স্কুলের অন্যান্য কার্যক্রমগুলো কিন্তু বন্ধ নেই। আমরা অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখী হচ্ছি কিন্তু তার পরেও আমরা থেমে নেই।
টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার মোঃ মাসুদ রানার সঞ্চালনায় এছাড়াও বক্তব্য রাখেন, উত্তর তরপুরচন্ডী কাজীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকের প্রতিনিধি। মতবিনিময় সভায় আরও যুক্ত ছিলেন, মোঃ আব্দুল মালেক, রফিকুল ইসলাম মিন্টু ও অ্যাডভোকেট পলাশ মজুমদার; ইয়েস গ্রুপের সহ-দলনেতা মেহেদী হাসান নবীন ও মাহমুদা আক্তার এবং টিআইবি কর্মীবৃন্দ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *