শেষ শ্রদ্ধায় সিক্ত জেয়াদ আল মালুম

চাঁদপুর প্রতিদিন ডেস্ক :
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের জ্যেষ্ঠ প্রসিকিউটর (আইসিটি) বীর মুক্তিযোদ্ধা জেয়াদ আল মালুমের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বিভিন্ন পেশাজীবী, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তি ও সংগঠন। রবিবার (২৭ জুন) রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে তার মরদেহ নিয়ে আসার পর বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়।
দুপুর আড়াইটায় তার মরদেহ নিয়ে আসা হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সেখানে তার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির পক্ষ থেকে সংগঠনের সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক দীপক শীল, বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি আইন বিভাগ, কমিউনিস্ট পার্টি ঢাকা কমিটি, ডক্টরস ফর হেলথ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট, হেলথ অ্যান্ড হোপ হাসপাতাল, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতি, একতা পত্রিকা, ওয়ার্কার্স পার্টি (মার্ক্সবাদী), কমিউনিস্ট পার্টি নারী সেল, বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদ, বাংলাদেশ যুব ইউনিয়ন, কমিউনিস্ট পার্টি সূত্রাপুর থানা কমিটি, বাংলাদেশ কৃষক সমিতি, ঐক্য ন্যাপ, গণজাগরণ মঞ্চ, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, মুক্তির পতাকা, জাসদ, প্রীতিলতা বিগ্রেড, গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন, রিকশা-ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়ন, বিপ্লবী ওয়ার্কাস পার্টি, উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রসহ বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠন।
শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, ‘জেয়াদ আল মালুম আমাদের একটি সম্পদ। আমাদের জাতির একটি রত্ন। তিনি ক্লান্তিকর, নিঃস্বার্থ পরিশ্রমের ভেতর দিয়ে আমাদের জাতিকে উপহার দিয়েছেন স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ। স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে হায়েনার হাত থেকে দেশকে বাঁচাতে তিনি অনন্য ভূমিকা পালন করেছেন। তিনি ছিলেন একজন অনন্য সাধারণ মানুষ, অনন্য সাধারণ কমরেড। তিনি চিরঞ্জীব হয়ে থাকবেন আমাদের স্মৃতিতে নয় সক্রিয় বিল্পবী কর্মকাণ্ডের ভেতর দিয়ে। তাকে আমরা বিদায় দিলাম না নিজেদের ভেতরে ধারণ করে রাখলাম।’
এর আগে দুপুর ২টায় সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে তারা জানাজা সম্পন্ন হয়। জানাজা শেষে তার মরদেহে গার্ড অব অনার প্রদান করেন ঢাকার এসিল্যান্ড মারুফা সুলতানা খান হীরামনি।
জানাজায় আরও উপস্থিত ছিলেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান, বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম, বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম, বিচারপতি মো. দিলীরুজ্জামান, অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন, অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নুর তাপসসহ অসংখ্য আইনজীবী।
জানাজা শেষে বিচারপতি, অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক ও বর্তমান নেতৃবৃন্দ, আইনমন্ত্রীর পক্ষে যুগ্ম সচিব হাবিবুর রহমান, পুলিশ হেডকোয়ার্টারের পক্ষে এআইজি মাহফুজুর রহমান আল মামুন, কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নসহ আরও কয়েকটি সংগঠনের পক্ষে মরহুমের মরদেহে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
শনিবার (২৬ জুন) দিবাগত রাত ১১টা ৫০ মিনিটে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।
এর আগে গত ২৫ মে রাতে স্ট্রোক করে অসুস্থ হয়ে পড়ায় জেয়াদ আল মালুমকে রাজধানীর শ্যামলীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তী সময়ে তাকে করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। তবে তার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হওয়ায় তাকে সিএমএইচে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়।
প্রসঙ্গত, ২০১০ সালের ২৫ মার্চ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠিত হলে রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনার জন্য অ্যাডভোকেট জেয়াদ আল মালুম প্রসিকিউটর হিসেবে নিয়োগ পান। সেই থেকে তিনি দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিনি জামায়াতে ইসলামীর সাবেক আমীর গোলাম আজম ও মতিউর রহমান নিজামী, সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীসহ বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনালে করা মামলার বিচারে রাষ্ট্রপক্ষে বিশেষ ভূমিকা রাখেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *