সমালোচকরা ভ্যাকসিন গ্রহণ করে প্রমাণ করেছেন সরকার যথাযথ ব্যবস্থা নিয়েছে এবং এটি কার্যকর

চাঁদপুর সদরে ইউজিডিপির করোনা বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ
নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের আয়োজনে করোনা বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণের দ্বিতীয় দিনে চাঁদপুর প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। গত সোমবার থেকে এই প্রশিক্ষণ শুরু হয়। সদর উপজেলা পরিষদের হলরুমে এই প্রশিক্ষণ চলছে। এতে বিভিন্ন পর্যায়ের পেশাজীবী, ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকর্মী ও জনপ্রতিনিধিরা অংশ নেন। গতকাল দ্বিতীয় দিনের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান।
ছয় দিনব্যাপী এই প্রশিক্ষণের শিরোনাম হচ্ছে : বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯ সম্পর্কে সচেতনতা, আক্রান্ত রোগীর পরিচর্যা, প্রসূতিদের প্রজনন স্বাস্থ্য ও ব্যক্তিগত পরিচর্যা। ইউজিডিপি তথা উপজেলা পরিচালক ও উন্নয়ন প্রকল্প ও স্থানীয় সরকার বিভাগের সহায়তায় এবং বাংলাদেশ সরকার ও জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সির (জাইকা) অর্থায়নে এই প্রশিক্ষণ হচ্ছে। এটি বাস্তবায়ন করছে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি। এই প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আলোচনা করেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা শাহানাজ ও সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী বেপারী। এরপর পর্যায়ক্রমে বিষয়ভিত্তিক আলোচনা করেন সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সাজেদা বেগম পলিন, মেডিকেল অফিসার ডাঃ কাজী আসিফ, ডাঃ তানজিদা সুলতানা ও জয়নব বানু। অতিথি হিসেবে আলোচনায় অংশ নেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা ও সহ-সভাপতি এএইচএম আহসান উল্লাহ। এছাড়া এই প্রশিক্ষণের বিষয়ে সার্বিক ধারণা প্রদান এবং চিত্র তুলে ধরেন ইউডিপির কোর্স কো-অর্ডিনেটর শেখ মোঃ হারুনুর রশিদ হিরা।
প্রশিক্ষণের বিষয়গুলো হচ্ছে : কোভিড-১৯ বিষয়ে সচেতনতা, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বিষয়ক সাধারণ আলোচনা, কোভিড-১৯ রোগী ব্যবস্থাপনা, আক্রান্ত রোগীদের প্রাথমিক ও মানসিক চিকিৎসা, কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা প্রদান ও গ্রহণ পদ্ধতি, প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা প্রাপ্তির স্থান ও সেবাগ্রহিতাদের করণীয়, কোভিড-১৯-এর সময় ব্যক্তিগত পরিচর্যা ও সুরক্ষা, বয়ঃসন্ধি বিষয়ক জটিলতা ও করণীয় এবং কোভিড-১৯ বিষয়ে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টিতে নাগরিকের করণীয় ও সরকারি কর্মচারীদের ভূমিকা। আজ এই প্রশিক্ষণ শেষ হবে। প্রধান অতিথি নূরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ানসহ অন্য অতিথিরা তাদের বক্তব্যে বলেন, বৈশ্বিক এই মহামারী সম্পর্কে জনগণকে যতবেশি সচেতন করা হবে, জনগণ ততবেশি এই মহামারীর প্রাদুর্ভাব থেকে বেঁচে থাকতে পারবে। আর আক্রান্ত হওয়ার সাথে সাথে এমনকি এর লক্ষণ দেখা দেয়ার সাথে সাথেই চিকিৎসা নিতে হবে, চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। চিকিৎসকের নির্দেশনা অনুযায়ী চলতে হবে। এই রোগের বিষয়ে আতঙ্ক নয়, সচেতনতাই হচ্ছে মূল কথা। আর এখনো যারা ভ্যাকসিন নেননি, তাদের দ্রুত ভ্যাকসিন নিয়ে নেয়া দরকার। ভ্যাকসিন নিয়ে যারা সমালোচনা করেছেন, নেতিবাচক কথা বলেছেন, তারা নিজেরা ভ্যাকসিন গ্রহণ করে প্রমাণ করলেন সরকার যথাযথ ব্যবস্থা নিয়েছে এবং এটি কার্যকর।
নাজিম দেওয়ান বলেন, রিজভী আহমেদরা করোনার টিকার বিষয়ে নেগেটিভ কথা বললেও এখন তারা এই টিকা গ্রহণ করেছেন। এতে আমরা খুশি। সরকারের সময়োচিত পদক্ষেপে দেশের আপামর জনগণ সন্তুষ্ট।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *