সাহিত্য মঞ্চ ও আপনের বিদায় সংবর্ধনায় আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান

নিজস্ব প্রতিবেদক :
সাহিত্য মঞ্চ ও আপন এর আয়োজনে চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামানকে বদলিজনিত বিদায় সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে।
২৫ জুন শুক্রবার বিকালে চাঁদপুর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ভবনে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আপন এর প্রতিষ্ঠাতা ও আহ্বায়ক রোটাঃ ডা. রাশেদা আক্তার।
উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন করেন, সাহিত্য মঞ্চের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, কবি ও অনুবাদক মাইনুল ইসলাম মানিক।
সাহিত্য মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক ও আপন এর সদস্য সচিব কবি আশিক বিন রহিমের প্রাণবন্ত উপস্থাপনায় সংবর্ধিত অতিথিকে শুভেচ্ছা জানান, আপনের উপদেষ্টা ডা. মাসুদ হাসান, চাঁদপুর জর্জ কোর্টের এপিপি অ্যাড. বদরুল আলম, চাঁদপুর সাহিত্য পরিষদের সহ-সভাপতি কবি ইকবাল পারভেজ, জেলা প্রশাসন কর্তৃক গঠিত স্বেচ্ছাসেবক দলের টিম লিডার ওমর ফারুক, আপন এর যুগ্ম আহবায়ক ও শিক্ষক ও মো. মাসুদুর রহমান, আব্দুল আজিজ শিশির, জেব্রা ক্রসিং প্রকাশনির প্রকাশক কবি কেএম নজরুল ইসলাম, সাহিত্য মঞ্চের সদস্য সাদ আল আমিন প্রমূখ।
সংবর্ধিত অতিথিকে নিবেদন করে কবিতা পাঠ করেন সাহিত্য মঞ্চের বিথী নন্দী, সামিয়া জামান, মারিয়া আক্তার, সুমাইয়া, লাবনী আক্তার।
সংবর্ধিত অতিথির বক্তব্যে মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, আজকের এ বিদায় সংবর্ধনা আমি চিরজীবন মনে রাখবো। যেহেতু আমি শিক্ষক পরিবার থেকে এসেছি সেহেতু শিক্ষার একটা প্রভাব থেকেই যাই। আমার উদ্দেশ্য ছিলো নির্ধারিত দায়িত্বের ছকে না থেকে জনগণের পাশে থেকে সেবার করার। আমরা যে যে পেশাই থাকি না কেন, পেশার মধ্যে ভালোবাসা থাকতে হবে। চেয়েছিলাম চাঁদপুরবাসীর জন্যে কিছু সেবা করার। যতটুকু পেরেছি করেছি। আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি চাঁদপুরবাসী আমাকে আপন করে নেয়ার জন্যে।
তিনি আরো বলেন, করোনাকালীন সময়ে আমার এত সুনামের পিছনে আমার স্বেচ্ছাসেবকদের অবদান রয়েছে। চাঁদপুরের প্রায় সবকটি সামাজিক সংগঠনে আমি পরিদর্শন করেছি। ভালো লেগেছে এসব সামাজিক সংগঠনগুলোতে শিক্ষার্থীরা জড়িয়ে আছে। চাঁদপুরের সাহিত্য মঞ্চের আয়োজনগুলো আমাকে মুগ্ধ করেছে। আপন নামে প্রতিষ্ঠিত সামাজিক সংগঠনটির মানবিক কাজগুলো চাঁদপুরবাসীর নজর কেড়েছে।
মাহমুদ জামান আরো বলেন, চাঁদপুরের মানুষগুলো উদার, মানবিক, তা সামাজিক সংগঠনগুলো দেখলে বুঝা যায়। জনগণের মাঝে নিজের আস্থা তৈরী করতে হলে অনেক কিছু ত্যাগ করতে হয়। ভালোবাসার থেকে বড় কোন শক্তি আর নেই।
সংবর্ধিত অতিথিকে শুভেচ্ছান্তে জানিয়ে বক্তারা বলেন, আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জামান একজন জনবান্ধব অফিসার ছিলেন। তিনি কখনো কোন ব্যবধান খুঁজেন নাই। চাঁদপুরবাসীর সবার সাথে মিশে গেছেন। উনার মত ভালোবাসার মানুষ আমাদের খুব বেশি প্রয়োজন। উনাকে দেখে আমরা সবসময়ই অনুপ্রানিত হই। উনি জানেন ভালোবাসলে ভালোবাসা পাওয়া যায়।
বক্তারা আরো বলেন, করোনাকালীন সময়ে নিজের জীবনকে বাজি রেখে তিনি চাঁদপুরবাসীর জন্যে কাজ করেছেন। আমরা আশাকরি এদেশের প্রতিটা ঘরে ঘরে একটা মাহমুদ জামান তৈরি হবে। আমরা চাই তিনি যেখানেই থাকেন চাঁদপুরবাসীর কথা মনে রাখেন।
সবশেষে সাহিত্য মঞ্চ ও আপনের পক্ষ থেকে সংবর্ধিত অতিথিকে শুভেস্মারক এবং বই উপহার দেয়া হয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন আপনের সদস্য ও চাঁদপুর ইন্টারেক্ট ক্লাবের প্রেসিডেন্ট ওমর হামজা, ভাইস প্রেসিডেন্ট আদনান তানজিল, সেক্রেটারি সাইফুর রহমান অনিম, ট্রেজারার সামিউল তাইফ, কো-ট্রেজারার ফারহান ফুহাদ আকাশ প্রমুখ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *