সিনিয়র সচিব হলেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব আখতার হোসেন

নিজস্ব প্রতিবেদক :
সিনিয়র সচিব হিসেবে পদোন্নতি পেলেন শরীয়তপুরের কৃতী সন্তান, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আখতার হোসেন। বুধবার (২ জুন) মো. আখতার হোসেনকে সিনিয়র সচিব হিসেবে পদোন্নতি দিয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মুহাম্মদ আব্দুল লতিফের স্বাক্ষরে ঐ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।
সিনিয়র সচিব করার পর তাঁকে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে পদায়ন করা হয়েছে। সিনিয়র সচিব হিসেবে পদোন্নতি প্রদান করায় মো. আখতার হোসেন প্রধানমন্ত্রী এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন।
তিনি সবার সহযোগিতা কামনা করে বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণের সহায়ক শক্তি হয়ে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত উন্নত সমৃদ্ধ আধুনিক আলোকিত বাংলাদেশ নির্মাণের সিপাহসালার হিসেবে নিরবচ্ছিন্ন কাজ করতে চাই।
এদিকে চাঁদপুরের একসময়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বর্তমান যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আখতার হোসেন সিনিয়র সচিব হিসেবে পদোন্নতি পাওয়ায় তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী।
২০১৯ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর মো. আখতার হোসেনকে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে সচিব হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এ পদে যোগ দেয়ার আগে তিনি গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ছিলেন।
যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে সচিব হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপির সার্বিক দিকনির্দেশনায় তিনি দেশের যুব ও ক্রীড়ার উন্নয়নে নিরলস কাজ করে চলেছেন। ২০১২ সালের ৯ জানুয়ারি সরকার প্রশাসনে প্রথমবারের মতো সিনিয়র সচিব নামে পদ চালু করে।
সিনিয়র সচিব মো. আখতার হোসেন ২০১৯ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে যোগদান করেন। এ পদে যোগদানের আগে তিনি ২০১৪ সালের অক্টোবর থেকে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ে অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন ও উন্নয়ন) পদে কর্মরত ছিলেন। তার আগে তিনি স্থানীয় সরকার বিভাগে উপ-সচিব ও যুগ্ম-সচিব পদে কর্মরত ছিলেন। তিনি এর আগে প্রায় ৫ বছর পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে সিনিয়র সহকারী সচিব ও মন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব পদে কাজ করেছেন।
সচিব মো. আখতার হোসেন বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বিসিএস) প্রশাসন ক্যাডারে ১৯৮৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে যোগদান করে প্রায় ৩৩ বছর সরকারি চাকরিতে পেশাগত অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন। চাকরি জীবনের শুরুতে তিনি ১০ বছরের বেশি ফেনী, চাঁদপুর, কক্সবাাজার ও ঝালকাঠী জেলায় সহকারী কমিশনার, উপজেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদে চাকরি করেন।
মো. আখতার হোসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে ১৯৮৩ সালে বিএসএস (অনার্স) এবং ১৯৮৪ সনে সমাজবিজ্ঞানে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। এছাড়া চাকরিকালীন সময়ে সরকারের অনুমতি নিয়ে এলএলবি ও এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেন। মো. আখতার হোসেন দেশে-বিদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান হতে পেশাগত প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সম্মেলন ও সেমিনারে অংশগ্রহণ করেছেন।
তিনি সরকারি দায়িত্বের অংশ হিসাবে নগর উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে ইউএসএ, ইউকে, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া ও কোরিয়ায় প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন। তিনি স্থানীয় সরকার ব্যবস্থাপনা বিষয়ে প্রশিক্ষণের জন্য চীন, তুরস্ক, ভিয়েতনাম, পেরু, সাউথ আফ্রিকা ও মালাউয়ি ভ্রমণ করেছেন।
এছাড়া তিনি দক্ষতা উন্নয়নের জন্য ইউএসএ, কানাডা, নেদারল্যান্ড, জাপান ও সিংগাপুর হতে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন। তিনি সরকারি দায়িত্বের অংশ হিসেবে ভারত, পাকিস্তান ও নেপাল ভ্রমণ করেছেন।
মো. আখতার হোসেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসাবে পদাধিকার বলে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সহ-সভাপতি এবং বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার্ড গ্রাজুয়েট এবং এলামনাই এসোসিয়েশনের সদস্য। এছাড়া তিনি ঢাকা অফিসার্স ক্লাবের সদস্য।
শরীয়তপুর জেলার কৃতী সন্তান মো. আখতার হোসেন বেগম মাহবুবা আক্তারের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের ১ ছেলে ও ১ মেয়ে রয়েছে। ছেলে নাফিজ ইমতিয়াজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমবিএ ক্লাসের ছাত্র এবং মেয়ে জেরিন তাসনিম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞানে অনার্সের চতুর্থ বর্ষে অধ্যয়নরত।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *