হাজীগঞ্জে ইসলামী ব্যাংক কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত, বাড়ি লকডাউন

শাখাওয়াত হোসেন শামীম :
হাজীগঞ্জে ব্যাংক কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। তার নাম হাবীবুর রহমান (৩৫)। সে ইসলামী ব্যাংকের ঢাকা শাখার কর্মকর্তা। তিনি হাজীগঞ্জ উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের মিজি বাড়ি সাবেক ব্যাংকার মোশারফ হোসেনের ছেলে।
গতকাল বুধবার সকালে তার শরীরে করোনা পরিক্ষার রিপোট পজেটিব আসার খবরে তার হাজীগঞ্জ বাজারের ৫ তলা বাড়ি লগডাউন করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করে হাজীগঞ্জ উপজেলা ইউএনও বৈশাখী বড়ুয়া। এ বাড়িতে ৫ পরিবারের ৩০ সদস্য বসবাস করে।
হাজীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এস এম সোয়েব আহমেদ চিশতী বলেন, আক্রান্ত ব্যাক্তি একজন ব্যাংক কর্মকর্তা। তিনি ঢাকায় থাকতেন। গত ১৮ এপ্রিল হাজীগঞ্জে আসেন। এরপরে তার শ^শুর মারা যাওয়ার পরে তিনি চট্টগ্রামে যান। সেখানে থেকে এসে ২৭ এপ্রিল করোনা আছে এমন সন্দেহে নিজ উদ্যোগে আমাদের কাছে পরীক্ষা দেন। আজ ২৯ এপ্রিল তার রিপোর্ট আসলে জানতে পারি পজেটিভ। তবে তার কোন উপসর্গ নেই। তিনি এখন বাড়ীতেই আছেন। প্রয়োজন হলে তাকে আইসোলেশনে নেয়া হবে। এই বিষয়ে আলোচনা হচ্ছে।
রোগী হাবিবুর রহমানের বাবা মোশারফ হোসেন জানান, সে গত ১৫ দিন আগে সিলেটে বেড়াতে গিয়েছে তার আগে ঢাকায় ছিল। গত সোমবার তার তার সর্দি কাশি গলা ব্যাথা দেখা দিলে সে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থকমপ্লেক্সের পরিক্ষা করে নমুনা পাঠায়। পরে বুধবার সকালে তার নমুনা রিপোট পজেটিভ আসে।
খবর শুনে হাজীগঞ্জের ইউএনও বৈশাখী বড়ুযা, পৌর মেয়র আসম মাহবুব উল আলম লিপন, হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইন চার্জ আলমগীর হোসেন রনিসহ প্রসাশনিক কর্মকর্তা ও সাংবাদিকবৃন্দ ওই বাড়ি লকডাউন করে লাল কাপড় টানিয়ে দেয়া হয়।
ইউএনও বৈশাখী বলেন, এ ৫ তলা বাড়িতে ৫ পরিবারের ৩০ জনকে লকডাউনে থাকার নির্দেশ দেন। তারে প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সরবরাহের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেযা হযেছে। রোগী লক ডাউনের আওতায় চিকিৎসা নিবে।
চাঁদপুরের সিভিল সার্জন ডা. সাখাওয়াত উল্যাহ জানিয়েছেন, বুধবার ৩৯ জনের রিপোর্ট এসেছে। একজনের রিপোর্ট পজিটিভ। তিনি ১৫ দিন আগে ঢাকা থেকে এসেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.