হাজীগঞ্জে কনের বয়স ২২ দিন কম হওয়ায় বিয়ে বন্ধ

শাখাওয়াত হোসেন শামীম :
জন্ম নিবন্ধনে ২২ দিন কম। বিয়েটি হলে তা হবে বাল্য বিয়ে। তাই ইয়াসমিনের বাবা মাকে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ পৌরসভায় ডেকে পাঠালেন স্থানীয় প্রসাশন।
হাজীগঞ্জ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সানজিদা মজুমদার ওই বাল্য বিয়েটি বন্ধ করে দেন।
পাশের গ্রামেই বিয়ে ঠিক হয়েছিল ইয়াসমিনের। সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন। রান্নাবান্নাও শেষ। বর নিয়ে মেহমান আসার অপেক্ষা। তখনি ফোন আসে ইয়াসনিনের বাবা ইলিয়াসের মুঠোফোনে।
স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর আলহাজ্ব কবির হোসেন কাজী জানালেন মেয়ের বিয়ের বয়স হয়নি। ইয়াসমিন হাজীগঞ্জ পৌরসভার দক্ষিণ টোরাগড় গ্রামের ইলিয়াসের মেয়ে।
মঙ্গলবার বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সানজিদা মজুমদার বলেন, হাজীগঞ্জ পৌর এলাকার দক্ষিণ টোরাগড় গ্রামের ইলিয়াছ মিয়ার মেয়ে ইয়াসমিন আক্তারের বিয়ে পাশ্ববর্তি গ্রামের এক যুবকের পারিবারিক ভাবে ঠিক হয়। তাদের বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। পরে হাজীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার খবর পেয়ে আমি ও আমাদের বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ কমিটি স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে অবহিত করি। এক পর্যায়ে ইয়াসমিনের পরিবারকে পৌরসভায় ডেকে ওই বিয়ে বন্ধ করে দেই।
ইয়াসমিনের জন্মনিবন্ধনে ২২ দিন কম থাকায় এ বিয়ে বাল্য বিয়ের আওতায় পড়ে। সেজন্য ওই বিয়ে বন্ধ করে আগামী একমাস পর বিয়েটি সম্পন্ন করার পরমর্শ দেয়া হয়। তাই ইয়াসমিনের বাবার অঙ্গীকারনামা রাখা হয়।
হাজীগঞ্জ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সানজিদা মজুমদার আরো বলেন, আমাদের উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোমেনা আক্তার বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে বদ্ধপরিকর। আমারা এবং আমাদের বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ কমিটি বাল্যবিবাহরোধে কাজ করছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *