হাজীগঞ্জে ২য় পর্যায় প্রধানমন্ত্রীর নগদ অর্থ পাচ্ছেন ৭ হাজার দুস্থ পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক :
হাজীগঞ্জে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বরাদ্ধকৃত নগদ অর্থ পাচ্ছেন উপজেলার ৭ হাজার অসহায় ও করোনা কর্মহীন পরিবারগুলো। ত্রান ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের আত্ততায় প্রায় অর্ধ কোটি টাকার নগদ অর্থ তালিকা ভূক্ত পরিবারদের মাঝে পৌছে দিবেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। এরই মধ্য নগদ অর্থ বিতরণের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার অসহায় ও দুস্থ পরিবারের মাঝে জিআর ক্যাশ টাকা বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রতিটি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা উপস্থিত থেকে এসব সহায়তা বিতরণ করবেন স্ব স্ব ইউনিয়নের ট্যাগ অফিসারগন। চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে এই নগদ টাকা বিতরণ শুরু হয় বলে নিশ্চিত করেছেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. জাকির হোসেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চলতি বছরে ভিজিএফ চালের পরিবর্তে সরকার ভিজিএফ ক্যাশ টাকা দিয়েছেন। এবার হাজীগঞ্জ উপজেলায় ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় ৭ হাজার পরিবারের মধ্যে জিআর ক্যাশ জনপ্রতি ৫০০ টাকা করে ৩৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। এতে প্রতিটি ইউনিয়নে ২ লাখ ৭৫ হাজার টাকা এবং পৌরসভা ৪ শত অসহায় ও দুস্থ্য পরিবারের লোকদের জন্য ২ লাখ টাকা বরাদ্ধ দেয় ত্রান ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রনালয়। এরই মধ্য কিছু ইউনিয়নে এই বরাদ্ধকৃত অর্থ বিতরণ শুরু হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর অর্থ বিতরণের শেষ পর্যন্ত প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে তদারকি করবেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোমেনা আক্তার। ফলে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা কোন ধরনের হের-ফের করার শাহস পাবেন না। এতে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের অর্থ সঠিক ভাবে দুস্থ্য পরিবারগুলোর হাতে পৌছবে বলে ধারনা করছেন সচেতন মহল। এবারের লকডাউনে অনেকে অসহায়ত্ব জীবন-যাপন করেন। এমন মূহুর্তে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের দনগদ’ অর্থ পেয়ে কিছুটা স্বস্তি ভোগ করবেন খেটে খাওয়া মানুষগুলো।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. জাকির হোসেন বলেন, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় হাজীগঞ্জ উপজেলায় জিআর ক্যাশ ৩৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। উক্ত বরাদ্দকৃত নগদ অর্থগুলো অসহায় ও দুস্থ্য মানুষের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছ। ইতোমধ্য কিছু ইউনিয়নে শুরু করা হয়েছে এবং ক্রমান্বয়ে বাকি ইউনিয়নগুলোতে প্রধানমন্ত্রির উপহারের অর্থ বিতরণ কার্যক্রম শেষ হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *