এসএসসি ‘৮৫ : এক দশক পরে আবার হৈ-হুল্লোড়!

শামসুদ্দিন আহমেদ মানিক :

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে বন্ধুদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় আলোর মুখ দেখলো এস এস সি – ১৯৮৫ ব্যাচ চাঁদপুরের বন্ধুদের ঈদউত্তোর আড্ডা। ঈদ উল ফিতরের পরদিন বুধবার অর্থাৎ ৪ ঠা মে বন্ধু মোস্তফা কামাল বাবুল, এবং ইকবাল হোসেন পাটোয়ারীর সহযোগিতায় প্রিয় বিদ্যাপীঠ হাসান আলী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে ৩২ জন বন্ধুর সরব উপস্থিতি ছিলো চোখে পড়ার মতো।

কুমিল্লা থেকে সকাল পৌনে ৮ টায় বাসে রওয়ানা হয়ে কিছুদুর যাওয়ার পরই আকাশ মেঘে অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে আসছিলো। কিছুক্ষন পরই ঝুম বৃষ্টি ! মনটাই খারাপ হয়ে গেলো। হাজিগঞ্জ যাওয়ার পরেই বৃষ্টি থেমে রোদের দেখা মিললো। আমারও সংক্ষিপ্ত ঘুম ভাঙলো। ফোনে কয়েক বন্ধুকে নক করে সময়মতো ভেনুতে চলে আসার অনুরোধ করতে থাকলাম। ঘড়ির কাঁটা ঠিক ১০ টা বাজতেই পৌঁছে গেলাম ভেনুতে। গিয়ে দেখি ওখানে আমার আগে বন্ধু নাজিম এসে হাজির। প্রায় ২০ বছর পর দেখা। হাসিটা আগের মতোই লেগে ছিলো মুখাবয়ব জুড়ে। একে একে বন্ধুরা আসা শুরু করলো। দেড় ঘন্টা বিলম্বে অবশেষে আমাদের প্রোগ্রাম শুরু হ’লো। ৩টা পর্বে বিভক্ত ছিলো সারাদিনের প্রোগ্রাম।

১ম পর্বে ছিলো বন্ধুদের নিজ নিজ পরিচয় প্রদান। এরই মাঝে কয়েকজন বন্ধু আমাদের মাঝ থেকে চিরতরে হারিয়ে যায়, সেই প্রিয় বন্ধুদের আত্নার মাগফেরাত কামনা করি আমরা । যতোদুর মনে পড়ে আমরা যাঁদের ইতিমধ্যে হারিয়েছি তাদের মধ্যে – রেজওয়ানুর রব রাজু , দেলোয়ার হোসেন দেলু , হানিফ গাজী ও শামছুজ্জামান শামছু। পাশাপাশি অসুস্থ্য বন্ধুদের আশু রোগমুক্তি কামনা করা হয়েছে। পুরো পর্বটি ফেসবুকে লাইভে ছিলো কাজল এবং বাবুল দু’জন ই ছিলো সক্রিয়। পুরো ১ম পর্ব জুড়ে ছিলো লাল চা , বিস্কুট , স্ন্যক্স, কোমল পানীয়। এ পর্বে সহযোগিতায় ছিলো বাবুল।
২য় পর্ব :
বন্ধু রিপন খাঁনের ট্রাক রোডে অবস্থিত মামার বাসায় বন্ধুরা সবাই একসাথে দুপুরের খাবার খেলাম। চমৎকার আর নয়ানাভিরাম ডুপ্লেক্স বাড়ি। সামনে সারি সারি গাছ আর ছিলো সবুজের সমারোহ। পাশে ছিলো একটা জলাধার। নানা রকমের মাছ খেলাধুলা করছিলো , অপূর্ব। পোলাউ , রুই মাছ ফ্রাই , মুরগীর রোস্ট , গরুর মাংস , দই, মিষ্টি কোমল পানীয় আর শেষে ছিলো পান। ধন্যবাদ বন্ধু রিপন, তোকে অনেক কষ্ট দিলাম সবাই মিলে।
৩য় পর্ব :
ডাকাতিয়ায় নৌকা ভ্রমনের কথা থাকলেও অতিরিক্ত রোদের কারনে তা হয়ে উঠেনি। এজন্য বন্ধু আখলাকুর রহমান মাইনুর খুব মন খারাপ ছিলো। বন্ধু , ইনশাআল্লাহ পরের বার হবে। সুস্বাদু ভুড়িভোজের পর আবারো সবাই মেতে উঠলো আড্ডায়। বিকেল ৫ টায় মাতৃপীঠ স্কুল আর মিশন রোডের মাথায় রেড চিলি নামক একটা রেস্তোরাঁয় বন্ধু কাজল এবং মাইনুদ্দিন সোহেল সবাইকে সুফ আর চিকেন ফ্রাইতে আপ্যায়িত করলো। থেমে থেমে ওখানেও চলমান ছিলো আড্ডা আর স্মৃতিচারন। সন্ধ্যা ৭ টায় বিদায় নিলাম সব বন্ধুদের কাছ থেকে।

আমাদের এই আড্ডার মূল উদ্দেশ্য ছিলো কয়েকটি। যেমন –
– গেট টুগেদার / মিলন মেলা
– বন্ধুত্তের বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করা
– অসুস্থ্য বন্ধুদের পাশে কিভাবে সক্রিয় ভাবে থাকা যায় , তার উপায় বের করা।
সেই অনুযায়ী প্রাথমিক ভাবে উপস্থিত বন্ধুদের উপস্থিতিতে কতিপয় সিদ্ধান্ত গৃহিত হয় যা হ’লো ,

আগামী ৩০ ডিসেম্বর – ২০২২ শূক্রবার দিন এস এস সি ‘৮৫’ব্যাচ চাঁদপুর এর গেট টুগেদার / মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হবে। সে লক্ষ্যেই তাৎক্ষনিক কিছু সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। সময়ের দাবী অনুযায়ী প্রয়োজনে যার সংযোজন এবং বিয়োজন দু’টোই করা যাবে। বন্ধুদের অবগতির জন্য যা নিম্নে বর্ননা করা হ’লো –

১. ৩০ ডিসেম্বর – ২০২২ মিলন মেলাকে কেন্দ্র করে রেজিষ্ট্রেশন ফি ধরা হয়েছে –
বন্ধুদের জন্য – ১,০০০/-
স্পাউছ ( আমাদের ভাবী এবং দুলাভাই) – ৫০০/-
সন্তান – ফ্রি। তবে রেজিষ্ট্রেশন ফর্মে তাদের সংখ্যা অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে।
ড্রাইভার – ফ্রি
২. ঢাকায় দায়িত্বপ্রাপ্ত বন্ধু –
মাহাবুব, মাইনুদ্দিন, মাইনু, সাঈদ, কাইয়ুম, জাকির, ডাঃ শফিক, নেয়ামুল বশির
৩. চাঁদপুরে দায়িত্বপ্রাপ্ত বন্ধু –
ইকবাল, বাবুল, এড :বাবু , আমিন, রিপন খান, এডঃদুলাল গাজী, বাপ্পী , উৎপল মজুমদার , আপেল, রাব্বানী , ফুল মিয়া, ফাতেমা
৪. ঢাকা, চাঁদপুর এবং প্রবাসে সমন্বয়কারী বন্ধু –
কাজল, মানিক , নাজমুন্নাহার লুনা
৫. ম্যাগাজিন প্রকাশনা –
ইকবাল, সেলিম, শামীম
৬. রেজিষ্ট্রেশন –
বাবুল
বিকাস এবং ফোন নাম্বার – 01711195843
৭. প্রত্যেক থানা থেকে ২ জন করে কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত হবে।
৮. পরবর্তী আড্ডা / মিটিং –
আগামী ঈদ উল আজহার পরের দিন। সকাল ১০ টায়। ভেনু আমাদের বন্ধু মনিরের বাসার সুন্দর ছাদটি।

যে সমস্ত বন্ধুরা আসতে পারেনি তাদেরকে আমরা সবাই খুব মিছ করেছি। আশাকরি আগামী ঈদ উল আযহার পরের দিন বন্ধু উপিস্থিতি আরো বাড়বে। সুদুর জাপান থেকে ভিডিও কলে আমাদের সাথে দুই দফায় যুক্ত হওয়ার জন্য ডা: মশিউর রহমান মিশনকে জানাই আন্তরিক কৃতজ্ঞতা। ভাংগা পা নিয়ে পুরান বাজার থেকে আমাদের সাথে যোগ দিয়েছে বন্ধু রাসেল। অপারেশান পূর্ববর্তী সময়ে অসুস্থ্য থাকা সত্বেও বন্ধু আমিন আহমেদ আমাদের সাথে যুক্ত হয়েছিলো। আমিন , রাসেল – তোদের জন্য আমাদের ভালোবাসা।

অনেক ভালো একটা সময় কাটালাম ৩২ জন বন্ধু মিলে। আগত সকল বন্ধুদের জন্য রইলো ভালোবাসা। স্মৃতিচারণ গুলো আস্তে আস্তে করা হবে। চোখ কান খোলা রাখিস বন্ধুরা। পেইজে সবাই সরব থাকিস।

ভালো থাকিস প্রানের বন্ধুরা।

লেখক পরিচিতি : এসএসসি’ ৮৫ বন্ধু
স্কুল : চাঁদপুর হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.