কচুয়ায় ফোন পেলেই অক্সিজেন নিয়ে রোগীর বাড়ি ছুটছেন গোলাম হোসেনের কর্মীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলায় করোনা প্রতিরোধে সার্বক্ষণিক সেবা দিতে কাজ করে যাচ্ছেন এনবিআর-এর সাবেক চেয়ারম্যান ও সচিব মো. গোলাম হোসেনের টিম। করোনা আক্রান্ত কিংবা উপসর্গে শ্বাসকষ্টজনিত কারণে কারো অক্সিজেন প্রয়োজনের খবর পেলেই সঙ্গে সঙ্গে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে ছুটে যাচ্ছেন রোগীর বাড়িতে। উপজেলার ১টি পৌরসভা এবং ১২ টি ইউনিয়নে গত ২ আগস্ট থেকে ২৪ ঘন্টা এ সেবা দেয়া হচ্ছে। এছাড়া করোনা সংক্রমণরোধে উপজেলার বিভিন্নস্থানে বিতরণ করা হচ্ছে মাস্ক ও হ্যান্ডস্যানিটাইজার। এর আগে দেয়া হয় ১৩ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা।


এই টিমের কর্মীরা জানান, কচুয়ায় করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় এ এলাকার কৃতী সন্তান এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান মো. গোলাম হোসেনের অর্থায়নে গত ২ আগস্ট থেকে ২০টি অক্সিজেন সিলিন্ডারের মাধ্যমে রোগীদের সেবা দেয়া হচ্ছে। বিতরণ অব্যাহত রয়েছে মাস্ক ও হ্যান্ডস্যানিটাইজার।
কর্মীরা বলেন, আমাদের হটলাইনে কেউ ফোন করলেই সঙ্গে সঙ্গেই আমরা ওই রোগীর চাহিদা অনুযায়ী সহযোগিতা দেয়ার জন্য ছুটে যাচ্ছি। এ টিমের হটলাইন- ০১৭১১৩৪০০০১, ০১৭১৩৬১০৪৬৬, ০১৮১৪৮৩৯১৭৭, ০১৭৮১৮৮২২৪৮, ০১৮১১৫২২৬৪৪, ০১৮১৮৬৭৩০৭৫।


জানা গেল, করোনাকালে জনগণকে সেবা দেয়ার জন্য এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান মো. গোলাম হোসেনের সার্বিক সহযোগিতা ও পরামর্শে কচুয়া উপজেলায় প্রতিটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সমন্বয়ে ১০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। উপজেলার পর্যায়ে কন্ট্রোল রুমের মাধ্যমে এ সেবা দেয়া হচ্ছে।
মাঠ পর্যায়ে এই টিমের যৌথভাবে নেতৃত্ব দিচ্ছেন সাময়িক বহিস্কৃত উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাতেন সরকার, জেলা পরিষদ সদস্য মো. জুবায়ের হোসেন, পৌর কাউন্সিলর কামাল হোসেন অন্তর, পৌর কাউন্সিলর আবুল খায়ের রুমি, কচুয়া বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন প্রধান।


এ বিষয়ে এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান মো. গোলাম হোসেন বলেন, এই অতিমারির সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সরকার দেশের জনগণের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে এবং মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে মানুষের পাশে দাড়ানোর চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। করোনা প্রতিরোধে আমরা অক্সিজেন সেবাসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছি। মানুষের চাহিদা অনুযায়ী প্রয়োজনে এ সেবার পরিধি আরও বাড়ানো হবে। যতদিন পর্যন্ত প্রয়োজন ততোদিন এ সেবা দেয়া হবে।
তিনি বলেন, এই দুর্যোগকালে মানুষের সেবা যারা মাঠে সহযোগিতা করছেন তাদের কাছেও আমি কৃতজ্ঞ।
ইউনিয়ন পর্যায়ে এ সেবামূলক কাজে নেতৃত্বে দিচ্ছেন ১নং সাচার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো: মিজান মুহুরী, ২নং পাথৈর ইউনিয়নের মো: মামুন চৌধুরী, ৩নং বিতারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো: হারুন পাটওয়ারী, ৪ নং পালাখাল মডেল ইউনিয়নের মো: বাবুল সরদার, ৫নং সহেদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো: আলমগীর হোসেন,
৬নং উত্তর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো: কাজী জহিরুল ইসলাম টগর, ৭নং কচুয়া দক্ষিন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো: লিটন মুন্সী, ৮নং কাদলা ইউনিয়নের মো: আলমগীর তালুকদার, ৯নং কড়ইয়া ইউনিয়নের মো: সেলিম সরকার, ১০নং গোহট উত্তর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো: শাহাজান প্রধানীয়া ও মনির হোসেন, ১১নং গোহট দক্ষিন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো: সেলিম, ১২নং আশ্ররাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো: রেজাউল মাওলা হেলাল মুন্সী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.