করোনাকালে হাজীগঞ্জে মৃত্যুর সংবাদ পেলেই দাফন-কাফনে ছুটে যান তারা

শাখাওয়াত হোসেন শামীম :
প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস ছোঁয়াছুঁয়ি রোগ। সহজেই ছড়িয়ে পড়ে একজন থেকে আরেকজনের মধ্যে। তাই করোনা আক্রান্ত রোগী শুনলেই শুধু প্রতিবেশি নয় আপনজনও কাছ থেকে দুরে চলে যায়। ঝুঁকির কারণে অনেকেই করোনায় মৃতদের ধারেকাছে যায়নি। আর সবচেয়ে ভয়নক সংকট পড়তে হয় করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ দাফন নিয়ে। বিভিন্ন কবরস্থানে করোনায় মৃতদের দাফনে সমস্যা তৈরি হয়। কোনো কোনো কবরস্থানে দাফনেও বাধা তৈরি হয়। এ অবস্থায় মৃত ব্যক্তির দাফন-কাফন এবং সার্বিক সকল কাজের জন্য ১৫ সদস্য বিশিষ্ট স্বেচ্ছাসেবক টিমের প্রধান ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র হাজীগঞ্জ উপজেলা শাখার সেক্রেটারী হাফেজ মো. শাহাদাত হোসেন প্রধানীয়া নেতৃত্বে করোনায় মৃতদের দাফনে এগিয়ে আসে তারা।

২০২০ ইং থেকে এ পর্যন্ত করোনাকালীন সময়ে ৫১টি লাশের দাফন-কাফন করেছেন তারা।

তবে তাদের কোনো প্রস্তুতি ছাড়া হঠাৎ করেই এ কাজটি শুরু করেননি। এজন্য প্রশিক্ষণ নিতে হয়েছে তাদের। কিভাবে নিজেদের রক্ষা করতে হবে করোনাভাইরাস থেকে সে বিষয়ে থাকতে হয় সতর্ক।

টিমের প্রধান হাফেজ মো. শাহাদাত হোসেন প্রধানীয়া বলেন,জানাজায় আমরা যারা থাকি, আমাদের টিমের মধ্যে পাঁচ-ছয়জন আমরা এরাই থাকি। কবরস্থানের একজন দুজন হতে পারে। আর দুই একটা লাশের বেলায় তার অভিভাবক বা দূর সম্পর্কের কোনো আত্মীয়-স্বজনকে দেখা যায়।

তিনি আরো জানান, এক দিনে পাঁচটি লাশ দাফন-কাফন কাজ করেছি, দাফন করতে দুপুর থেকে অর্ধরাত হয়ে গেছে। এর মধ্যে হিন্দু ৩ জনকে সৎকার কাজে আমরা সহযোগীতা করেছি। আমরা এ কাজ চালিয়ে যাবো যতদিন দেশ স্বাভাবিক না হবে, সম্পূর্ণ ধর্মীয় রীতিনীতি মেনে প্রতিটি লাশ দাফন-কাফন করা হয়।

১৫ সদস্য বিশিষ্ট স্বেচ্ছাসেবক টিমের প্রধান হাফেজ মো. শাহাদাত হোসেন প্রধানীয়া ০১৭১১-০৭১২১৭, টিম সমন্বয়কারী মো. কামাল গাজী ০১৮৩০-১২৬০৬৯, সদস্য মাওলানা শরাফ উল্যাহ, ০১৮১৩-৩০৬৮৬৯, আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সর্দার, ০১৮১৭-৬২১৮৯১, মাওলানা মো. নজরুল ইসলাম, ০১৮১৪-১৫০৩২৪, মাওলানা মো. নূরে আলম, ০১৯২৫-৮১৭৫৪০, মো. মোশারফ হোসেন মনা, ০১৮৭১-২৩৩৭১৭।

সদস্য মো. আল আমিন, ০১৭১৭-৫১৯৮৪৩, হাফেজ মো. মুকবুল আহমেদ, ০১৭৫৮-৮০৫৬৬৩, মোহাম্মদ আব্দুল কাদের, ০১৮৭০-৩০৮৯৬৮, মো. মোবারক হোসেন স্বপন, ০১৮২২-৯৬৫৬০৬, মো. শাহাদাত হোসেন, ০১৮৪৬-৮৬৩২২২। এছাড়াও মৃত মহিলাদের দাফনে তিনজন মহিলা স্বেচ্ছাসেবক রয়েছেন। তারা হলেন, খাদিজা বেগম, খাদিজা বেগম জোৎস্না ও বিলকিছ বেগম।

এর আগে গত বছরের (২০২০ইং) এপ্রিল মাসে করোনা ভাইরাসে নিহত ব্যক্তির মৃতদেহ দাফনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র আমির ও পীর সাহেব চরমোনাইয়ের নির্দেশে হাজীগঞ্জ উপজেলায় শাখার উদ্যোগে প্রথমে ১১ সদস্য বিশিষ্ট স্বেচ্ছাসেবক টিম গঠন করা হয়। এরপর একই বছরে দ্বিতীয় ধাপে ১৩ সদস্য বিশিষ্ট স্বেচ্ছাসেবক টিম গঠন এবং চলতি বছরের জুলাই মাসে তৃতীয় ধাপে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট স্বেচ্ছাসেবক টিম গঠন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.