চাঁদপুরের ‘মিনি কক্সবাজার’ নামক চর কেটে ফেলা হবে

আইডাব্লিউএম এর স্ট্যাডি রিপোর্ট পেলে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত
: আশিক বিন রহিম :
চাঁদপুরে মেঘনার পশ্চিম তীরে অবস্থিত মিনি কক্সবাজার নামক চরটি কেটে ফেলা হবে বলে। নদীর নব্যতা বাড়াতে এবং মেঘনার ভাঙন থেকে চাঁদপুর শহররক্ষা বাঁধ রক্ষায় এটি জরুরী হয়ে পড়েছে। এমনটি জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিস। ২৭ সেপ্টেম্বর সোমবার সকাল ১১টায় চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এ কথা জানান।
জেলা প্রশাসক বলেন মেঘনার পশ্চিম তীরে মিনি কক্সবাজার চাঁদপুর শহর রক্ষায় গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেখানে ভ্রমণপিপাসু মানুষের উপস্থিতি বাড়ছে। কিন্তু নদীর গতি ধারা এবং নব্যতা ঠিক রাখতে এই চরটি দ্রুতই কেটে ফেলতে হবে বলে নদী বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন। পানি উন্নয়ন বোর্ড বলছে এই চারটি থাকলে চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ হুমকির মুখে পড়বে। তাই অতি শীঘ্রই কেটে ফেলার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, চাঁদপুর বড় স্টেশন মোলহেডের সৌন্দর্য বৃদ্ধির কারণে জেলা প্রশাসন ও পৌরসভা যৌথভাবে কাজ করেছে। কিন্তু রেল কর্তৃপক্ষ বলছে তারা নিজেরাই সেখানে কাজ করবে। আমরা চাই এই স্থানটি গুরুত্ব এবং সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে ভালো কিছু করা হোক।
সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ইমতিয়াজ হোসেন। চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট এনামুল হাসানের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন, পুরানবাজার ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ রতন কুমার মজুমদার, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী, সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা, সাবেক সভাপতি কাজী শাহাদাত, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা শাহনাজ, লেখক পীযূষ কান্তি বড়ুয়া, মুহাম্মদ ফরিদ হাসান প্রমূখ।
এ বিষয়ে চাঁদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নকিব আল হাসান বলেন, প্রাথমিক আইডিয়া হচ্ছে ওই চরটি কেটে ফেলার প্রয়োজন হতে পারে। তবে এ বিষয়ে এখনো কোন কিছু চূড়ান্ত হয়নি।
তিনি বলেন, আগের একটি রিপোর্টে এটি কাটার দরকারের কথা বলা হয়েছে। এরপর আমাদেরকে বলা হয়েছে চরটি কাটার দরকার হলে স্ট্যাডি করার জন্য। সেই প্রেক্ষিতে আমাদের এখানে আইডাব্লিউএম এর মাধ্যমে একটি স্ট্যাডি চলছে। তারা পদ্মা থেকে শুরু করে মেঘনার ওই চ্যানেলটি স্ট্যাডি করছে। তাদেরকে চার মাস সময় দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে কাজটি শেষ করতে হবে। তাদের রিপোর্ট অনুযায়ী আমরা পরবর্তী কার্যক্রম পরিচালনা করবো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *