চাঁদপুর ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনের শুরুতেই অনিয়মের অভিযোগ, রির্টানিং কর্মকর্তাই প্রার্থী

চাঁদপুর প্রতিদিন রিপোর্ট :
স্বাধীনতার পর প্রথমবারের মতো নির্বাচন হতে যাচ্ছে চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার। আগামি ২৫ এপ্রিল ক্রীড়া সংস্থার ভোটগ্রহণের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু এ নির্বাচন প্রক্রিয়ার শুরু থেকেই নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। রিটার্নিং অফিসার নিজেই হয়েছেন সদস্য পদে প্রার্থী। এমনকি মনোনয়ন সংগ্রহের তালিকায় নেই দু’ জন সাধারণ সম্পাদক ও একজন যুগ্ম সম্পাদকের নাম। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন প্রার্থীরা।
জানা গেছে, জেলা ক্রীড়া সংস্থার ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যনির্বাহী পরিষদের মধ্যে ২৭ জন সদস্যকে নির্বাচিত হয়ে আসতে হবে। আর এ ২৭টি পদের মধ্যে সাধারণ সম্পাদক পদে ৩ জন এবং একটি যুগ্ম সম্পাদক পদে ২ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। বাকীরা বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হচ্ছেন।
সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন গোলাম মোস্তফা বাবু, শাহাদাত হোসেন শান্ত, সফিউল আজম। যুগ্ম সম্পাদক-১ পদে মিজানুর রহমান খান বাদল ও সালাউদ্দিন আহমেদ শান্ত।
ক্রীড়া সংস্থা সূত্র জানায়, জেলা ক্রীড়া সংস্থার ভোটার রয়েছেন ৫৭ জন। এ নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়ন সংগ্রহের শেষ দিন ১২ এপ্রিল পর্যন্ত ২৭টি পদের বিপরীতে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ৩২ জন প্রার্থী। এ হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বীতা হতে যাচ্ছে শুধুমাত্র সাধারণ সম্পাদক ও যুগ্ম সম্পাদক পদসহ দু’ তিনটি পদে। কিন্তু জেলা ক্রীড়া অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তার পাঠানো তালিকায় বর্তমান সাধারণ সম্পাদকের নাম থাকলেও মনোনয়ন সংগ্রহকারী অপর দু’ প্রার্থীর নাম নেই। এমনকি নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা রিটার্নীং কর্মকর্তা জেলা ক্রীড়া অফিসার মোঃ তারিকুল ইসলাম একটি প্যানেলে সদস্য পদে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন। এছাড়া তিনি নিজে একটি প্যানেলের কাগজে রিটার্নিং অফিসার হিসেবে সীল ও স্বাক্ষর প্রদান করেন।
সংশ্লিষ্টরা জানান, এতো বছর ভোট ছাড়া ‘সমন্বয়ের’ মাধ্যমে কার্যনির্বাহী কমিঠি গঠন করা হলেও স্বাধীনতার পর এই প্রথম চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থায় ভোটের একটা আভাস দেখা দিয়েছে। বিগত দিনে জেলা ক্রীড়া সংস্থার কমিটি গঠন সংক্রান্ত তেমন কোন কাগজপত্র নেই। কমিটি গঠন প্রক্রিয়ায় গড়মিলেও অভিযোগ রয়েছে।
সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহকারী শাহাদাত হোসেন শান্ত বলেন, আমি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছি, কিন্তু রিটার্নিং অফিসার তালিকায় সবার নাম অন্তর্ভূক্ত করেননি। তিনি একটি প্যানেলের নাম তালিকাভূক্ত করে সেটিকেই ‘চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যকরী পরিষদের নির্বাচন, ২৯টি পদে মনোনয়নপত্র উত্তোলনের নামের তালিকা’ বলছেন। এছাড়া তার নিজেও ওই প্যানেল থেকে প্রার্থী হয়েছেন।
এ ব্যপারে রির্টানিং কর্মকর্তা জেলা ক্রীড়া অফিসার মোঃ তারিকুল ইসলাম জানান, সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে সদস্য পদে আমি একটি প্যানেলে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছি। সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে আমি প্রার্থী হতে পারি।
এদিকে সাংবাদিকরা প্রশ্ন তোলার পর তড়িগড়ি তালিকা থেকে নিজের নাম বাদ দিয়ে একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি দেন জেলা ক্রীড়া অফিসার মো. তারিকুল ইসলাম। এতে তিনি উল্লেখ করেন, চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যকরী পরিষদের নির্বাচন ২০২২ অনুচ্ছেদের এর ১৩ গঠনতন্ত্র মোতাবেক জেলা ক্রীড়া অফিসার পদাধিকারবলে নির্বাহী সদস্য হাওয়ায় বর্তমান সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবুর নির্বাচনী প্যানেল থেকে জেলা ক্রীড়া অফিসার মোঃ তারিকুল ইসলাম এর নাম প্রত্যাহার করছি। চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার বর্তমান সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবুর নতুন প্যানেল ২৯ সদস্য এর পরিবর্তে ২৮ সদস্য বিশিষ্ট হবে। নিম্নে নতুন প্যানেল এর তালিকা সংযুক্ত করা হলো।
তার পাঠানো তালিকার উপরে লেখা রয়েছে, ‘চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যকরী পরিষদের নির্বাচন ২০২২। ২৮টি পদে মনোনয়নপত্র উত্তোলনের নামের তালিকা’।
এ তালিকা অনুযায়ী সহসভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ, আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, ডা. জে আর ওয়াদুদ টিপু, জাহিদুল ইসলাম রোমান, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবু, সহসাধারণ সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন পাটোয়ারী, যুগ্ম সম্পাদক-১ সালাউদ্দিন আহমেদ শান্ত, যুগ্ম সম্পাদক-২ মো. আবুল কাশেম আখন্দ, কোষাধ্যক্ষ আবু নাছের বাচ্চু পাটওয়ারী, সদস্য জিল্লুর রহমান জুয়েল, সুভাষ চন্দ্র রায়, মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, সাহির হোসেন পাটোয়ারী, ওমর পাটওয়ারী, এড সেলিম আকবর, শরীফ মো. আশ্রাফুল হক, এড. হেলাল হোসাইন, শেখ মো. মোতালেব, তমাল কুমার ঘোষ, ডা. মিজানুর রহমান খান, মনোয়ার হোসেন চৌধুরী, ফেরদাউস মোর্শেদ জুয়েল, শিপ্রা দাস, মাসুদা নূর খান, মো. আবু পাটওয়ারী, লক্ষ্মণ চন্দ্র সূত্রধর, তপন চন্দ্র, নূরন্নবী নোমান।
এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেন, আমি সরকারি কর্মকর্তা এবং রিটার্নিং অফিসার। তাই তালিকায় আমার নাম থাকতে পারে না। যদিও আমি পদাধিকার বলে ক্রীড়া সংস্থার সদস্য।
তালিকায় মনোনয়ন সংগ্রহকারী ৩২ জনের নামের পরিবর্তে ২৯ জনের নাম কেন এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ভুলে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক বাবু ভাইয়ের প্যানেলের তালিকা চলে গেছে।
তিনি বলেন, আগের কাগজপত্র তারা কখনো কাগজপত্র দেয়নি। এ জন্য আমার জন্য কাজ করা কঠিন হয়ে যাচ্ছে।
এ বিষয়ে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ও জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, আমি বিষয়টি শুনেছি। বুধবার বিষয়টি নিয়ে বসবো। কোন ধরনের অনিয়ম থাকলে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.