নারায়ণপুরের স্বর্ণ ব্যবসায়ী হত্যার ঘটনায় আটক ২ : স্বামীর হত্যার বিচার চান স্ত্রী প্রিয়াংকা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়ণপুর বাজারের স্বর্ণ ব্যবসায়ী অমর সরকার (৩৫)কে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় পুলিশ দুইজনকে আটক করেছে। এরা হচ্ছেন দোকানের কর্মচারি অনিক ও হৃদয় সূত্রধর। গত ২১ ফেব্রæয়ারি রাতে দুর্বৃত্তরা তাকে হত্যা করেছে। খবর জানতে পেরে ঘটনাস্থলে ছুটে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায়, পিআইবি চাঁদপুরের একটি টিম, সহকারী পুলিশ সুপার (মতলব সার্কেল) ইয়াসির আরাফাত, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া, ইন্সপেক্টর তদন্ত মোঃ মফিজুল ইসলামসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য।
নিহত অমর সরকার উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের নারায়ণপুর দাস বাড়ির রবি ভক্ত সরকারের ছেলে। তার বাড়িতে চলছে মাতম। স্ত্রী প্রিয়াঙ্কা স্বামীর শোকে কাতর। পাশেই মা ও বড় বোন কান্নায় ভেঙে পড়েছেন। অমরের দুই সন্তান মেয়ে আর্থি সরকার ও ছেলে পার্থ সরকার। সবার কান্না দেখে তারাও কান্না করছে।
অমরের স্ত্রী প্রিয়াঙ্কা বলেন, আমার স্বামীর সঙ্গে কারও দ্ব›দ্ব ছিল না। সে সবার সঙ্গে মিলে মিশে ব্যবসা করত। প্রতিদিন সাড়ে ৯টা থেকে ১০টার মধ্যে বাড়ি ফিরে আসত। ওইদিন রাতে দোকান থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। তখই বাড়ির পাশেই কে বা কারা তাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। আমি আমার স্বামী হত্যার বিচার চাই।
অমরের বাবা রবি ভক্ত বলেন, আমার ছেলের সঙ্গে অনিক নামে এক কর্মচারী ছিল। রাতে বাড়ি ফেরার সময় সে সঙ্গে ছিল। অনিক আমাদের বলেছে, তাকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে অমরকে হত্যা করে টাকা ও স্বর্ণ লুটে নিয়ে গেছে ঘাতকরা। আমার ছেলের শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম। গলা ও হাত-পায়ের রগ কেটে দিয়েছে।
হাফেজ আহমদ নামে এক ব্যবসায়ী বলেন, অমর দীর্ঘদিন ধরে নারায়ণপুর বাজারে মাধবী শিল্পালয়ে স্বর্ণের ব্যবসা করে আসছিলেন। তিনি অন্য ব্যবসায়ীদের বিপদ আপদে সহযোগিতা করতেন। তিনি খুব ভালো মনের মানুষ ছিলেন। কী কারণে অমরকে হত্যা করা হয়েছে, তা বলতে পারছি না। সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে হত্যাকারীদের বিচার দাবি করেন তিনি।
সহকারী পুলিশ সুপার ইয়াসিন আরাফাত বলেন, কী কারণে হত্যাকাÐের ঘটনাটি ঘটেছে, তা এখনো যানা যায়নি। তবে অমরের দোকানের কর্মচারী অনিককে প্রাথমিক জিজ্ঞাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। যত দ্রæত সম্ভব হত্যাকাÐের রহস্য উদ্ঘাটনের চেষ্টা করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.