বালু উত্তোলন বন্ধ করা হয়েছে, এখন কেউ যেন চাঁদাবাজি না করতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে

চাঁদপুর জেলা আইন-শৃংখলা কমিটির সভায় জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ
মাদক বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত : অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদিপ্ত রায়
দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমাদের সরকার জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছে : নাছির উদ্দিন আহমেদ
কিছু কিছু জায়গায় কিশোর গ্যাং দেখা যাচ্ছে : আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল
চাঁদপুর প্রতিদিন রিপোর্ট
চাঁদপুর জেলা আইন-শৃংখলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক ও বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অঞ্জনা খান মজলিস। সভায় জেলার বিদ্যমান আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি পর্যালোচনার পাশাপাশি মাদক ও চোরাচালান নিয়ন্ত্রণ, মাহে রমজান উপলক্ষে দ্রব্যমুল্য স্থিতিশীল রাখতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা, আদালতের মামলা সমূহ দ্রুত নিষ্পত্তিকরণ, পহেলা বৈশাখা উদযাপন, পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন, কিশোর গ্যাং প্রতিরোধ, ফেইসবুকে অপপ্রচার ও গুজব বন্ধে ব্যবস্থা, চাঁদপুর শহরের সড়কে জানজট নিরসনসহ গুরতর অপরাধ দমনে কর্মকৌশল প্রনয়ণ করা হয় এবং সংশ্লিষ্ট সকলকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়।
এছাড়া চাঁদপুরের নদী থেকে অপরিকল্পিত ও অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধের বিষয়টি অনেক বড় অর্জন বলে উল্লেখ করা হয়। তবে নদীতে চাঁদাবাজি যেন না হয় তার জন্য ব্যবস্থা নিতে নৌপুলিশকে নির্দেশনা দেয়া হয়। কারণ, অভিযোগ আছে, লাইটার জাহাজগুলোতে চাঁদাবাজি করে দুর্বৃত্তরা।
গতকাল ১০ এপ্রিল সকাল ১১টায় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এ সভায় বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিকরা অংশগ্রহণ করেন।
সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল বলেন, আমরা সবাইকে সহযোগিতা করতে চাই। কিছু কিছু জায়গায় কিশোর গ্যাং দেখা যাচ্ছে। এই কিশোর গ্যাং থেকে আমাদের রক্ষা করতে হবে।
জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ বলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়নের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন। এ কারণে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে।
তিনি আরও বলেন, আমাদের সরকার ঘোষণা করেছে দুর্নীতি, মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স। দুর্নীতি একটি দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতির অন্তরায়। দুর্নীতি একটি দেশকে ধ্বংস করে দেয়।
আমাদের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আমরা একটি ঠিকানা পেয়েছি। আমাদের উদ্দেশ্য ছিল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর মানুষ স্বাধীনতার সুফল ভোগ করছে।
তবে কিছু কিছু দুর্নীতির চিত্র পাওয়া গেছে। যা কোন অবস্থাতেই কাম্য নয়। এগুলো বন্ধ করতে হবে। চাঁদপুরে আগে চেয়ে মাদক বেড়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আরও কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদিপ্ত রায় বলেন, মাদক বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত আছে। বর্তমান সময়ে মাদক উদ্ধার বেড়েছে। ঈদের সময়ে প্রতি বছর মার্কেটগুলোতে মানুষ চলাচলের জন্য যেভাবে নিরাপত্তা দেয়া হতো এবারও তা অব্যাহত থাকবে। আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ ফোর্স নিয়োগ করা হবে।
জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, দ্রব্যমূল্যের উদ্ধগতি নিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে গুজব রটানো হয়েছে। এগুলো প্রতিহত করতে হবে। তিনি বলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্বল্প আয়ের মানুষের জন্য স্বল্পমূল্যে টিসিবির পণ্য ১ কোটি মানুষকে দেয়ার ঘোষণা দিলেন। আর তা বাস্তবায়নের জন্য জেলা প্রশাসনকে দায়িত্ব দিয়েছেন। টিসিবির ডিলাররা পণ্যগুলো বিক্রি করবে কিন্তু কাজটি করবে জেলা প্রশাসন।
তিনি আরও বলেন, নদী রক্ষা কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী নদী থেকে যত্রতত্র বালু উত্তোলন বন্ধ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন, নৌপুলিশ, কোস্টগার্ড মিলে আমরা এগুলো বন্ধ করেছি। তবে যখন এই বেআইনি কাজগুলো বন্ধ হয়েছে এই সুযোগে কেউ যেন আবার চাঁদাবাজি না করতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
জেলা প্রশাসক আরও বলেন, সেই পাকিস্তান আমলের রাস্তা দিয়েই চলাচল। মানুষ বেড়েছে বাড়েনি রাস্তা। চাঁদপুর শহরে যানজট নিরসনে রাস্তা প্রশস্ত করা জরুরি হয়ে পড়েছে। অনেকেই রাস্তার পাশে বাড়ি নির্মাণ করেছেন জায়গা ছাড়েনি। ১০ জন লোকের জন্য ১০ হাজার মানুষ কষ্ট পাবে সেটা মেনে নেওয়া যায় না। আজকে সবাই বাইপাস সড়কের দাবি তুলেছেন এটা একটি ভালো প্রস্তাব। জেলা প্রশাসক এ বিষয়ে সড়ক বিভাগকে সার্ভে করতে অনুরোধ জানান। তিনি আরো বলেন, চাঁদপুরে অন্য জেলার সিএনজি আসতে পারবেন না। কেবল চাঁদপুরের সিএনজি চাঁদপুরেই চলবে। আইন অমান্য করলে শাস্তির আওতায় আনতে হবে। বাজার নিয়ন্ত্রণ বিষয়ে জেলা প্রশাসক বলেন মোবাইল কোর্ট এর লক্ষ্য অপরাধ হ্রাস পাওয়া। কাউকে জরিমানা মানা করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। মোবাইল কোট চালিয়ে যাচ্ছি দ্রব্য মূল্য নিয়ন্ত্রণ রাখতে। চাঁদপুরে ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়েছে পানি ব্যবহারে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। পাসপোর্ট অফিসের নামে অভিযোগ উঠেছে বলে জেলা প্রশাসক বলেন, পাসপোর্ট নিয়ে হয়রানি নয়। দেশের নাগরিক হিসেবে একজন মানুষের পাসপোর্ট পাওয়ার অধিকার রয়েছে। যদি কারো কোন কারণে পাসপোর্ট বাতিল হয়ে যায় সে মেসেজ টিও তাকে পেতে হবে।
সভায় জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশের সভাপতিত্বে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট নাসির উদ্দিন সরোয়ারের সঞ্চালনায় আইনশৃঙ্খলার বিভিন্ন বিষয় মতামত তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায়, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব নাসির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান জুয়েল, চাঁদপুর সিভিল সার্জন মোঃ শাহাদাৎ হোসে, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ এ কে এম মাহবুবুর রহমান, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক সংসদ কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ ওয়াদুদ, জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ ইমদাদ হোসেন, চাঁদপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক মোঃ শরিফুল ইসলাম প্রমুখ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.