হাজীগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র মান্নান খান বাচ্চুর স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি ট্রাস্টে দানের ঘোষণা

শাখাওয়াত হোসেন শামীম :
হাজীগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র আব্দুল মান্নান খান বাচ্চু তার স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি জনকল্যাণ তথা দরিদ্র মানুষের কল্যাণে মান্নান খান কল্যাণ ট্রাস্টের নামে দান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
হাজীগঞ্জ উপজেলার বিএনপির সাবেক সভাপতি ও দুই দুই বারের পৌর মেয়র প্রবীদ রাজনীতিবিদ এবং সফল একজন ব্যবসায়ী আলহাজ্ব মো. আবদুল মান্নান খান বাচ্চু স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি
সাধারণ মানুষের কল্যাণে দান করার ঘোষনা দেন গত ১৭ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার বিকালে হাজীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ রোডে সান্ত্বনা সুপার মার্কেটের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে। তিনি জানান, আমি এখন জীবন সায়াহ্নে উপনীত, জীবনের এই পর্যায়ে আমার তেমন কোনো বৈষয়িক চাহিদা নেই। আমি অনেক সম্পদশালী ব্যক্তি নই, তবে আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি সারাজীবনের যে কষ্টের উপার্জনটাই মান্নান খান কল্যাণ ট্রাস্টের নামে দিয়ে দিবো।
সেখান থেকে একটি অংশ আমার পরিবার পাবে আর একটি অংশ গরিব-দুস্থ মানুষের জন্য দিবো। যারা ঘরবাড়ি করতে পাড়ে না ও মেয়ে বিয়ে দিতে পাড়ে না এবং চিকিৎসা করাতে পাড়ে না তাদের জন্যই আমার
ট্রাস্টের মূল উদ্দেশ্য। আমার ট্রাস্টের মূল লক্ষ হল অসহায় পরিবারের মানুষগুলো পাশে থাকা।
আমার ছোট বেলা থেকে উদ্দেশ্য ছিল মানব কল্যাণে কাজ করা। আমি হাজীগঞ্জ পৌরসভার দুই বারের মেয়রের দায়িত্ব পালন কালে সততা ও মানব কল্যাণে করেছি।
আমার এই সম্পদ যে মানব কল্যাণে ব্যায় হয় ও মৃত্যুর পর যেন মানুষ আমাকে মনে রাখে। আমি আমার নিজ জন্মস্থান রান্ধুনীমুড়া ১০ নং ওয়ার্ডের মনিনাগ মেয়র বাড়ীতে এক কোটি টাকা ব্যায়ে একটি মসজিদ নির্মাণ করেছি এবং সান্ত্বনা সুপার মার্কেটে আরো একটি মসজিদ করবো।
সাবেক দুই বারের মেয়র ও সফল ব্যবসায়ী আলহাজ্ব মো. আবদুল মান্নান খান বাচ্চু সমূদয় সম্পত্তি দান করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে কোন বিষয়টি তাকে অনুপ্রাণিত করেছে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আধ্যাত্মিক অনুভূতি থেকে যদি বলি, কোনো মানুষ পৃথিবী ছেড়ে চলে যাওয়ার সময় তার সম্পত্তি সঙ্গে করে নিয়ে যেতে পারেন না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.