শাহরাস্তিতে স্বামী হত্যা মামলায় স্ত্রীর যাবজ্জীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার মেহের উত্তর ইউনিয়নের নয়নপুর গ্রামে স্বামী জামাল হোসেনকে ঘুমের ওষধ ও বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী ফাতেমা আক্তার (৩৪) কে যাবজ্জীবন কারাদন্ড, ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে ৩ মাসের কারাদন্ড দিয়েছে আদালত।
রবিবার (২৪) অক্টোবর বিকেলে চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ বেগম ফারহানা ইয়াসমিন এই রায় দেন।
মামলার বিবরণ থেকে জানাগেছে, ২০১৬ সালে ১৪ এপ্রিল ফাতেমা আক্তারের সাথে তার স্বামী মৃত জামাল হোসেনের পারিবারিক বিষয়ে জগড়া বিবাদ হয়। সন্তানদের সামনে স্বামী ফাতেমাকে মারধর করায় অসম্মানবোধ করে। এরপর ক্ষিপ্ত হয়ে স্বামীকে জীবনে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করে। এরপরদিন ১৫ এপ্রিল পরিকল্পনা অনুযায়ী রাত ১১টায় বাজার থেকে স্বামী ঘরে আসলে জন্ডিসের তরল ওষধের সাথে ৮টি ঘুমের ট্যাবলেট মিশিয়ে রাখে। ওই ওষধ পান করে রাতে স্ত্রী ফাতেমাসহ ঘুমিয়ে পড়ে। রাত আনুমানিক ৩টার দিকে জামাল হোসেন অচেতন হয়ে পড়লে নাকে মুখে বালিশ চাপা দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে। ঘটনাটি গোপন করার জন্য ফাতেমা পাশবর্তী অন্যঘর থেকে তার ছেলে জাহিদুল ইসলাম ফাহিম (১৫) কে ঘুম থেকে উঠিয়ে তার পিতা মৃত্যুবরণ করেছে বলে জানায়। ছেলেকে ফাতেমা বলে তার পিতার সাথে জগড়া বিবাদ হয়েছে দিনে, যার ফলে তার মৃত্যুর ঘটনায় তাদেরকে সন্দেহ করবে। এই জন্য মা ও ছেলে একসঙ্গে বাড়ির পাশে পুরনো গর্ত আকারে বড় করে জামালকে মাটি চাপা দেয়। সকাল বেলায় ফাতেমা প্রচার করে তার স্বামী ঢাকায় চাকুরীর জন্য গিয়েছে। কিন্তু বিষয়টি জামাল হোসেন পরিবারের সন্দেহ হলে বিভিন্ন স্থানে খোঁজ নিয়ে সন্ধান পায়নি। পরবর্তীতে ফাতেমাকে দিয়ে ২৮ এপ্রিল শাহরাস্তি মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরী করে।
এরপর ৩০ এপ্রিল দুপুরে ফাতেমা আক্তার তার স্বামীর নিকটাত্মীয় অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য মো. আমির হোসেনের নিকট পুরো ঘটনার বিবরণ বলেন। আমির হোসেন ঘটনাটি শাহরাস্তি থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ এসে তাদেরকে থানা নিয়ে যায় এবং জিজ্ঞাসাবদের এক পর্যায়ে ঘটনাস্থলে নিয়ে জামাল হোসেনের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে। এই ঘটনায় ওইদিনই আমির হোসেন বাদী হয়ে শাহরাস্তি থানায় ফাতেমা আক্তার ও তার ছেলে জাহিদুল ইসলাম ফাহিমকে আসামী করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।
শাহরাস্তি থানা পুলিশ ওইদিনই ফাতেমা আক্তার ও তার ছেলেকে আদাতে পাঠান। গত ৬বছর ফাতেমা চাঁদপুর জেলা কারাগারে এবং ছেলে জাহিদুল ইসলাম শিশু-কিশোর সংশোধনাগারে থেকে এখন জামিনে আছেন। জাহিদুল এর মামলাটি পৃথক আদালতে চলমান।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তৎকালীন শাহরাস্তি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সমির মজুমদার তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ৩১ জানুয়ারী আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন।
মামলায় সরকার পক্ষের আইনজীবী অতিরিক্ত পিপি বদিউজ্জামান কিরণ বলেন, মামলাটি আদালতে ৬ বছর চলমান থাকা অবস্থায় ২০ জনের সাক্ষ্য গ্রহন করেন। মামলার সাক্ষ্যগ্রহন ও নথিপত্র পর্যালোচনা করে আসামীর উপস্থিতিতে বিচারক আজ এই রায় দেন।
আসামী পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট সেলিম আকবর, কাজী জুম্মান ও ইয়াসিন আরাফাত ইকরাম।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *