সাংবাদিকতায় রয়েছে অনেক ঝুঁকি : চাঁসক অধ্যক্ষ

চাঁদপুরে সাংবাদিকদের ৩ দিনব্যাপী পৃথক দু’টি প্রশিক্ষণ শুরু
: নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুর জেলায় সাংবাদিকদের জন্য ৩ দিনব্যাপী পৃথক দু’টি প্রশিক্ষণ শুরু হয়েছে। সিনিয়র সাংবাদিকদের জন্য অনুসন্ধানমূলক রিপোর্টিং প্রশিক্ষণ ও অন্যান্য সাংবাদিকদের জন্য বুনিয়াদি প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়েছে। তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) আয়োজিত এসব প্রশিক্ষণের সহযোগিতায় রয়েছে চাঁদপুর প্রেসক্লাব। প্রশিক্ষণে চাঁদপুর জেলা শহরের ৭০জন সাংবাদিক অংশগ্রহণ করছেন।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সকালে চাঁদপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর অসিত বরণ দাশ। প্রশিক্ষণ উদ্বোধন করেন সিভিল সার্জন ও চাঁদপুর সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. সাখাওয়াত উল্লাহ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জাহিদুল ইসলাম রোমান।

চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশার সঞ্চালনায় উদ্বোধন পর্বে আরে বক্তব্য রাখেন প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) প্রতিবেদক (অধ্যায়ন ও প্রশিক্ষণ) জিলহাজ উদ্দিন নিপুন, সহকারি প্রশিক্ষক বারেক হোসেন, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি কাজী শাহাদাত, সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া জীবন।
উদ্বোধকের বক্তব্যে চাঁদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর অসিত বরণ দাশ বলেন, গণমাধ্যম হলো সমাজের দর্পন। যেখানে চোখ রেখে সাধারণ মানুষ সমাজের বাস্তাব চিত্র দেখতে পায়। সাংবাদিকতার মানে হচ্ছে তথ্য সংগ্রহ করে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়া। সাংবাদিকতার কাজে অনেক ঝুঁকি রয়েছে। যেকোন কাজে অনুসন্ধান করা অনেক বড় একটি বিষয়।
তিনি আরো বলেন, চাঁদপুরে সম্প্রীতির একটি বিশেষ দিক রয়েছে। এখানকার মানুষ সম্প্রীতির বন্ধনে অবদ্ধ। এখানে সবার মধ্যেই আন্তরিকতা রয়েছে। সেইসাথে চাঁদপুরের সাংবাদিকরাও অনেক আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। চাঁদপুরে যারা সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত রয়েছেন, তাদের বেশিরভাব অনেক মেধাবী এবং পরিশ্রমি। এটি ধরে রাখতে হবে। চাঁদপুরের সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ থাকার কারণে প্রেসক্লাবের উন্নয়ন হয়েছে। শুধু তাই নয় চাঁদপুর প্রেসক্লাবের শুনাম সর্বত্র ছড়িয়েছে।
উদ্বোধকের বক্তব্যে চাঁদপুরের সিভিল সার্জন ডা. শাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, চাঁদপুর থেকে অনেকগুলো পত্রিকা প্রকাশিত হয়। সমাজ বিনির্মাণে এটি ভালো দিক। করোনাকালীন চরম দুঃসময়েও সাংবাদিকরা সবসময়ই মাঠে ছিলেন। তারা মানুষকে সচেতন করতে কাজ করেছেন। তাদের তাদের অনেকেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
তিনি আরো বলেন, এই ধরনের বুনিয়াদি প্রশিক্ষণের সবারই প্রয়োজন রয়েছে। কারণ, প্রশিক্ষণের কোন বিকল্প নাই। পিআইবি সাংবাদিকতা পেশার মানোন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। যার ফলশ্রুতিতে আজকের এই প্রশিক্ষণ। অনুসন্ধানীমূলক সাংবাদিকতায় জীবনের অনেক ঝুঁকি রয়েছে। তাই আপনারা সতর্কতার সাথে কাজ করবেন। সঠিক তথ্য উপস্থান করে দেশের অগ্রযাত্রাকে আরো এগিয়ে নিবেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অ্যাড. জাহিদুল ইসলাম রোমান বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রাম ও জাতির ক্রান্তিলগ্নে সাংবাদিকগণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতিতেও সাংবাদিকরা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন। বর্তমান সরকার ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিকবান্ধব। পেশাগত উন্নতির জন্য এ ধরণের প্রশিক্ষণ খুবই জরুরী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *