চাঁদপুরে বর্ণাঢ্য আয়োজনে জাতির পিতার জন্মবার্ষিকী উদযাপন

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন : জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ
অভিজিত রায় :
চাঁদপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ১০২ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের বর্ণাঢ্য আয়োজনে আলোচনা সভা, কেক কাটা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, পুরস্কার বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) দুপুরে চাঁদপুর স্টেডিয়ামে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) অঞ্জনা খান মজলিশ।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীনতা দিয়েছেন এবং দেশকে পুনর্গঠন করতে চেয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে তাঁরই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাত ধরে সর্বক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে। দেশের উন্নয়নে তিনি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় আমাদের এই বাংলাদেশে বিভিন্ন খাতে উন্নত পরিসরে আজ সোনার বাংলায় রূপ নিতে যাচ্ছে। আমরা এখন অনেক সমৃদ্ধশীল হতে পেরেছি।
তিনি আরও বলেন, মহামারী করোনাকালে এবং বর্তমানে ইউক্রেন রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পেলেও সাধারণ মানুষের জন্য শেখ হাসিনা কিন্তু ঘরে বসে নেই। তিনি দেশের মানুষের কাছে সুলভ মূল্যে খাবার পৌঁছে দেওয়ার জন্য টিসিবির পণ্যের ব্যবস্থা করেছেন। এতে সাধারণ মানুষ স্বল্প মূল্যে পণ্য ক্রয় করতে পেরে অনেক উপকৃত হচ্ছেন। যেকোনো অন্যায়-অপরাধ সহ সবকিছু প্রশাসনের একার পক্ষে প্রতিরোধ করা সম্ভব নয়। এতে জনগনের সহযোগিতা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। যেখানে জনগণ সমাজের যে কোন অন্যায় অপরাধ এবং দুর্নীতি নিয়ে কথা বলার সাহস পাবে। সেই জনগনই পারে প্রশাসনকে সহযোগিতা করতে। তাই কোন অন্যায় অপরাধ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে জনগণই অনেক বড় শক্তি। আর এই শক্তি আমাদেরকে কাজে লাগাতে হবে।
ডিসি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসলে দেশকেও ভালোবাসতে হবে। আর তা কাজের মাধ্যমে আপনাকে তা বোঝাতে হবে। আপনারা সচেতন থাকলে আমাদের কাজের অনেক সুবিধা হয়। যেখানে অন্যায় অপরাধ দেখবেন তাৎক্ষনিক প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন। বঙ্গবন্ধুর চেতনা শুধুমাত্র মুখে নয়, বাস্তবেও পরিনত করতে হবে।
অঞ্জনা খান বলেন, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বর্ণাঢ্য কর্মসূচি গ্রহণ করেছি এবং পালনও করছি। এরজন্যে আমরা সকলের সহযোগিতা পেয়েছি। বিশেষ করে বীর সন্তানরা আমাদের সাথে ছিলেন। এজন্য আমি গর্ববোধ করছি।
সাংবাদিক এমআর ইসলাম বাবু’র সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মিলন মাহমুদ বিপিএম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, সিভিল সার্জন ডা. মোহম্মদ সাহাদাৎ হোসেন, এনএসআই এর উপ-পরিচালক শাহ আরমান আহমেদ, প্রেসক্লাবের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মিলন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি তপন সরকার ও বিশিষ্ট ছড়াকার ডা. পিযুষ কান্তি বড়ুয়া প্রমূখ।
আলোচনা পূর্বে সকাল ৭টায় জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, জেলা মুক্তিযো সংসদসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তর ও সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে চাঁদপুর সরকারি কলেজে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এরপর সকাল ৯টায় চাঁদপুর স্টেডিয়ামে মুক্তির উৎসব ও সুবর্ণজয়ন্তী মেলা উদ্বোধন করেন ডিসি। এ সময় তিনি পুলিশ সুপার ও আওয়ামী লীগ নেতবৃন্দসহ মেলার স্টল পরিদর্শন করেন।
সকাল ১০টায় চাঁদপুর স্টেডিয়াম থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অংশগ্রহনে ৫০টি জাতীয় পতাকা নিয়ে বের হয় সুবর্ণজয়ন্তী র‌্যালী।
অপরদিকে সকাল ৮টায় চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর অস্থায়ী প্রতিকৃতিতে ১০২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে পুষ্পমাল্য প্রদান করেন জেলা আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.