চাঁদপুরের ১০ ইউপিতে চেয়ারম্যান-মেম্বার পদে প্রতীক পেলেন ৩৯০ প্রার্থী

ইব্রাহীম রনি :
আগামী ১১ নভেম্বর চাঁদপুর সদর উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ, ইসলামী আন্দোলন, জাকেরপার্টি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন ৩২ জন প্রার্থী। প্রতীক পাওয়ার পর থেকেই প্রার্থী ও তাদের অনুসারীরা পুরোদমে প্রচার-প্রচারণায় মাঠে নেমে গেছেন। এর মধ্যে বিষ্ণুপুর ইউনিয়নে ৩ জন, আশিকাটির ৩ জন, শাহমাহমুদপুরে ৪ জন, মৈশাদীতে ৩ জন, বাগাদীতে ৫ জন, বালিয়ায় ৭ জন, চান্দ্রায় ৪ জন এবং হানারচর ইউনিয়নে ৩ জন।
জেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ তোফায়েল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, সাধারণ মেম্বার পদে ২৮৫ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার পদে রয়েছেন ৭৩ জন।
জেলা নির্বাচন অফিস জানায়, সদর উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক পেয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. নাছির উদ্দিন খান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের অজিউল্লাহ সরকার পেয়েছেন হাতপাখা, স্বতন্ত্র প্রার্থী খোরশেদ আলম পেয়েছেন আনারস প্রতীক।
আশিকাটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নৌকা পেয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. বিল্লাল হোসেন পাটোয়ারী, ইসলামী আন্দোলনের মাসুদ গাজী পেয়েছেন হাতপাখা, স্বতন্ত্র দেলোয়ার হোসেন খান ভোটে লড়ছেন চশমা প্রতীক নিয়ে।
শাহমাহমুদপুর ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক পেয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. মাসুদুর রহমান নান্টু, ইসলামী আন্দোলনের মো. শাহ জামাল গাজী লড়ছেন হাতপাখা নিয়ে, স্বতন্ত্র প্রার্থী স্বপন মাহমুদ পেলেন টেলিফোন প্রতীক, মো. রফিকুল ইসলামের আনারস।
রামপুর ইউনিয়নে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. আল মামুন পাটোয়ারী।
মৈশাদী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান পদে ভোটে লড়ছেন আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী মো. নূরুল ইসলাম, হাতপাখা নিয়ে লড়ছেন ইসলামী আন্দোলনের আজহারুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু জাফর মোহাম্মদ ছালেহ পেয়েছেন আনারস প্রতীক।
তরপুরচন্ডী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইমাম হাসান।
বাগাদী ইউনিয়নে নৌকা নিয়ে ভোটে লড়বেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. বেলায়েত হোসেন, হাতপাখা নিয়ে ইসলামী আন্দোলনের নেয়ামত উল্যাহ, গোলাপ ফুল প্রতীকে জাকেরপার্টির মো. মুনছুর বেপারী, স্বতন্ত্র বরকত উল্যা খান ভোটে লড়ছেন চশমা প্রতীকে এবং আনারস প্রতীকে লড়বেন মো. মানিক মিয়া।
বালিয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে ভোটে লড়বেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. রফিকুল্যা পাটোয়ারী, হাতপাখা নিয়ে ইসলামী আন্দোলনের মো. নুরুদ্দিন খান, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. তাজুল ইসলাম লড়বেন টেবিল ফ্যান নিয়ে, মো. হাফিজুর রহমানের টেলিফোন, মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন তফাদারের আনারস, মো. কামরুল হাসান খান লড়বেন মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে।
চান্দ্রা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী খান জাহান আলী কালু পাটওয়ারী, হাতপাখা ইসলামী আন্দোলনের মো. মজিবুর রহমান মিয়াজী, স্বতন্ত্র প্রার্থী মুকবুলের ঘোড়া এবং আব্দুর রহমান বেপারী ভোটে লড়বেন আনারস প্রতীক নিয়ে।
হানারচরে নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. মুকবুল হোসেন মিয়াজী, ইসলামী আন্দোলনের মো. মনির হোসেনের হাতপাখা, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোজাম্মেল হোসেন গাজী পেয়েছেন আনারস প্রতীক।
এর আগে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন জমা দেন বিষ্ণুপুর ইউনিয়নে ৪ জন, আশিকাটির ৬ জন, শাহমাহমুদপুরে ৬ জন, রামপুরে ৫ জন, মৈশাদীতে ৪ জন, তরপুরচন্ডীতে ৩ জন, বাগাদীতে ৫ জন, বালিয়ায় ৭ জন, চান্দ্রায় ৫ জন এবং হানারচর ইউনিয়নে ৫ জন। এছাড়া সাধারণ মেম্বার পদে ১০টি ইউনিয়নে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন ৩৪৫ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার পদে ৭৯ জন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *