হাজীগঞ্জে চিকিৎসা ও ঋণগ্রস্ত হওয়ায় এক লাখ টাকায় কন্যা সন্তানকে বিক্রি

শাখাওয়াত হোসেন শামীম :
হাজীগঞ্জে চিকিৎসা ব্যয় ও ঋণের টাকা পরিশোধে ১ লাখ টাকার বিনিময়ে শিশু সন্তানকে বিক্রি করে দিলেন পিতা মাতা।
দুই কন্যা সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে বশির মজুমদারের সংসার। একটি সড়ক দুর্ঘটনায় পা ভেঙ্গে যায়। পরে রড লাগানো হয়। টাকার সংকটে সেই রড খুলতে পারছেন না তিনি। বিভিন্ন ব্যাক্তি ও এনজিওর কাছে আছে প্রায় ৫ লাখ টাকার ঋণ। চিকিৎসা খরচ ও ঋণের টাকা যোগাতে এক বছর বয়সী কন্যা শিশু মিনাকে বিক্রি করে দিয়েছে।
গতকাল মঙ্গলবার (২২ মার্চ) দুপুরে হাজীগঞ্জ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড খাটরা-বিলওয়াই মজুমদার বাড়ীতে। সে ওই বাড়ীর বশির মজুমদারের ছোট কন্যা জুবেদা আক্তার মিনা।
শিশুর মা আছমা বেগম জানান, রোববার চাঁদপুরে কোট এভিডেভিড এর মাধ্যমে শিশুকে বিক্রি করেন। ঋণগ্রস্ত থাকায় শিশুকে বিক্রি করার সিন্ধান্ত নেন তারা। এছাড়া তার স্বামী বশির মজুমদার অসুস্থ ও বেকার। তবে এখন ওই শিশু সন্তানকে ফেরত চান মা আছমা বেগম।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিশুর বাবা বশির মজুমদার এড়িয়ে যান। তবে তার ভাই জানান ধেররা আবেদীয়া মোজাদ্দেদিয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক কাজী হারুনুর রশিদের মাধ্যমে ঢাকায় এক নিঃসন্তান পরিবারের কাছে কন্যা শিশুকে বিক্রি করা হয়।
এ বিষয়ে ওয়ার্ড কাউন্সিলর মহসীন ফারুক বাদল ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, কোন শিশু সন্তার দত্তক দেয়া হলে পৌরসভাকে অবহিত ও একটি ফরম পূরণ করতে হয়। কিন্ত পরিবারটি তা করেননি।
হাজীগঞ্জ থানার অফিসার (ওসি) ইনচার্জ মোহাম্মদ জোবাইর সৈয়দ জানান, বিষয়টি জানা নেই। তবে খোঁজ-খবর নিচ্ছি। পরবর্তীতে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোমেনা আক্তার জানান, পৌরসভার প্যানেল মেয়রকে বিষয়টি দেখতে বলেছি। এছাড়াও ওসি সাহবের সাথে কথা হয়েছে। বিষয়টি আমরা দেখছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.