রামগঞ্জের সাথে শাহরাস্তি হাজীগঞ্জ ও ফরিদগঞ্জ উপজেলার সীমান্ত বন্ধ

দৈনিক চাঁদপুর প্রবাহে প্রকাশিত সংবাদের প্রেক্ষিতে চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি, হাজীগঞ্জ ও ফরিদগঞ্জ উপজেলার সাথে লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জের সীমান্ত বন্ধ ও জনচলাচল বন্ধে পুলিশি তৎপরতা বৃদ্ধি করেছে প্রশাসন। শনিবার জনপ্রশাসন ও পুলিশের বেশ কয়েকটি টিম উপজেলাগুলোর সীমান্ত এলাকায় এ তৎপরতা চালায়।

জানা যায়, শনিবার দৈনিক চাঁদপুর প্রবাহের ১ম পৃষ্ঠায় ‘লক্ষ্মীপুর জেলায় করোনা আক্রান্ত ১৯জনের ১৪জনই রামগঞ্জের : চরম ঝুঁকিতে শাহরাস্তি হাজীগঞ্জ ও ফরিদগঞ্জ’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

যার প্রেক্ষিতে সকালে পুলিশের ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে শাহরাস্তি থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহ্ আলম শাহরাস্তি উপজেলার সূচীপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়ন ও চিতোষী পশ্চিম ইউনিয়নের সীমান্ত এলাকা (লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জের ভাটরা ইউনিয়নের সাথে সংযুক্ত) সীল করে দেয়।

প্রতিবন্ধকতা ভেঙ্গে অযাচিত লোক আসা-যাওয়া বন্ধ করতে রাস্তার উপর পুলিশ, গ্রাম পুলিশ ও স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবকদের মাধ্যমে পাহারার ব্যবস্থা করেন। পরবর্তীতে শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লকডাউনকৃত স্থানগুলোতে পরিদর্শনে যান এবং স্বেচ্ছাসেবকদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন।

এ সময় তিনি মাইকে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত দুই জেলার সীমান্ত বন্ধ ও সকলপ্রকার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রাখার অনুরোধ করেন।

রামগঞ্জের ভাটরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবুল হোসেন মিঠু মুঠোফোনে চাঁদপুর প্রবাহকে জানান, লকডাউন না মেনে উপদ্রুত এলাকা হতে পালিয়ে আক্রান্তরা রামগঞ্জে প্রবেশ করায় এখানে অনেক লোক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। লকডাউন রক্ষায় আমার এলাকা হতে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। সূচীপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়ন ও চিতোষী পশ্চিম ইউনিয়নের সীমান্ত এলাকায় আমাদের ইউনিয়ন হতে গ্রাম পুলিশ পালাক্রমে পাহারা দিচ্ছে।

সূচীপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আঃ রশিদ জানান, পুলিশ ও ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবকরা মিলে সূচীপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের নরিংপুর বাজার, নেছারিয়া মাদ্রাসা রোড, কুমার বাড়ির দর্জা, কোমরতলা ব্রিজের গোড়া, ভুলুয়া বাড়ি ব্রিজ, আশারকোটা সর্দার বাড়ি ব্রিজ, দিগধাইর বড় বাড়ির দক্ষিনের ব্রিজ, বড় ভাংতি কালভার্ট, মিজি বাড়ি কানেকটিং রোড বন্ধ করে দিয়েছে। এসব রাস্তা দিয়ে শাহরাস্তি হতে লোকজন রামগঞ্জ যাওয়া-আসা করতো।

শাহরাস্তি থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহ আলম জানান, শাহরাস্তির সীমান্তবর্তী এলাকার রামগঞ্জ থানার পানিওয়ালাসহ অন্যান্য সীমান্তে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মাননীয় সংসদ সদস্য মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম ও পুলিশের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসনের উপস্থিতিতে লাল পতাকা দ্বারা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

হাজীগঞ্জ সার্কেল (হাজীগঞ্জ-ফরিদগঞ্জ) ও কচুয়া সার্কেলের (শাহরাস্তি-কচুয়া) অতিরিক্ত সুপার আফজাল হোসেন জানান, হাজীগঞ্জের সাথে রামগঞ্জের জনচলাচল রোধে সর্বোচ্চ কঠোরতা অবলম্বন করছে পুলিশ। আঞ্চলিক মহাসড়ক হওয়ায় হাজীগঞ্জ-রামগঞ্জ মহাসড়ক সীল না করে চেকপোস্ট জোরদার করা হয়েছে। হাজীগঞ্জ-ফরিদগঞ্জে লকডাউন নিশ্চিত করতে হাজীগঞ্জ চৌরাস্তা, সেন্দ্রা ও বেলচোঁ এলাকায় পুলিশি তৎপরতা বাড়ানোর পাশাপাশি অন্যান্য সড়কগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, লক্ষ্মীপুর জেলায় সর্বমোট আক্রান্ত ১৯জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে, যার মধ্যে শুধুমাত্র রামগঞ্জ উপজেলায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১৪জন। আক্রান্তদের মধ্যে রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসারসহ একই হাসপাতালের আরও ৪জন কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.