চট্টগ্রাম রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ এসআই কচুয়া থানার এসআই মকবুল হোসেন

কচুয়া প্রতিনিধি :
বাংলাদেশ পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ এস.আই হিসেবে পুরস্কার পেলেন চাঁদপুরের কচুয়া থানায় কর্মরত এস.আই মো. মকবুল হোসেন। ২৫ মার্চ বাংলাদেশ পুলিশ চট্টগ্রাম রেঞ্জ কর্তৃক আয়োজিত অভিন্ন মানদন্ডের আলোকে বিগত মার্চ মাসের মূল্যায়নে এস.আই মকবুল হোসেনের হাতে এ পুরষ্কার তুলে দেন বাংলাদেশ পুলিশ চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন বিপিএম (বার), পিপিএম(বার)।
কচুয়া থানায় কর্মরত পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এস.আই) মো. মকবুল হোসেন মার্চ মাসে চট্টগ্রাম বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে পুরস্কৃত হওয়ায় মহান আল্লাহ তায়লার প্রতি শুকরিয়া প্রকাশ করেন। পাশাপাশি এভাবে পুলিশ কর্মকর্তাদের পুরস্কৃত করলে কাজে আরো উৎসাহিত হবে বলে তিনি মনে করেন। এজন্য তিনি চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন বিপিএম (বার), পিপিএম(বার),চাঁদপুর পুলিশ সুপার (এসপি) মিলন মাহমুদ (বিপিএম-বার) ও কচুয়া থানার ওসি মো. মহিউদ্দিন এর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
এদিকে কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামের কৃতি সন্তান,চৌকস পুলিশ অফিসার (এসআই) মো. মকবুল হোসেন চট্টগ্রাম বিভাগের শ্রেষ্ঠ এসআই হিসেবে পদক পাওয়ায় তাঁকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন বিভিন্ন শ্রেনী পেশা মানুষ।

 

যে কারণে তিনি শ্রেষ্ঠ

কচুয়া থানায় চাঞ্চল্যকর মামলা নং-০২, জিআর-১১৭, তারিখ: ৩০.০৮.২০২১ ধারা ৩০২/৩৪/২০১ প্যানেল কোড। বাদী ফাতেমা আক্তার শেফালী অজ্ঞাত নামা বিবাদীদের বিরুদ্ধে কচুয়া থানায় মামলা দায়ের করেন। তার ১৪ বছরের মেয়েকে ধর্ষন করে লাশ পানিতে লুকিয়ে রাখে। ওই মামলার মূল আসামী নূরে আলম নুরা (২৬), পিতা- মনির হোসেন,সাং- বড় হায়াতপুর ও সজিব হোসেন (১৯), পিতা- আমির হোসেন, সাং- বড় হায়াতপুর (নানার বাড়ি) কে ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতার করে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দপূর্বক আসামীদের অপরাধের স্বীকারোক্তিমলক জবানবন্দি নিয়ে হত্যার মূল রহস্য উদঘাটন করেন। কচুয়া থানা মামলা নং- ৩৮,জিআর ৯৯,তারিখ: ২৪.০৩.২০২১ ধারা ৪৫৭/৩৮০ প্যানেল কোড। এর নিয়মিত মামলার ১৪জন আসামীসহ অন্যান্য মামলার আরো ৫জন আসামী গ্রেফতার করে বিগত মার্চ মাসের নিয়মিত মামলার ১৯জন আসামীকে ধৃত করে চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ জেলার মধ্যে পুলিশ অফিসার হিসেবে (এস.আই) শ্রেষ্ঠ পুলিশ অফিসার পদক গ্রহন করেন। এছাড়াও কচুয়া থানার চৌকস পুলিশ অফিসার কচুয়া থানার চাঞ্চল্যকর মামলা নং- ৩১,জিআর ১৬২,তারিখ- ৩০.০৫.২১ ধারা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ সংশোধিত। ২০০৩ এর ৯ (১) ধর্ষন তৎ সহ ২০১ প্যানেল কোড এর ৯বছরের শিশু ধর্ষনের আসামী শাহিন সর্দার, পিতা: মৃত আশেক আলী,গ্রাম-কাদলা সর্দার বাড়ি কচুয়া কে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ধৃত করিয়া বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করেন এবং কচুয়া থানার অপর এক চাঞ্চল্যকর মামলা ডুমুরিয়া বাজার ইসলামি এজেন্ট ব্যাংকিং শাখার চুরি মামলা নং- ১৯,জিআর ১৮২,তারিখ: ০৯.০৬.২১ ধারা ৩৮০/৪১১ চোরাইকৃত টাকা ৮ লক্ষ ১৬ হাজার ৪২২ টাকা এর মধ্যে আসামী আব্দুল্লাহ আল মামুন,পিতা- আবু তাহের ও মাহবুবুল আলম পিতা- আব্দুল করিম মাষ্টার,উভয় সাং- কাদলা, কচুয়া কে ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতার করে তাদের স্বীকারোক্তি মতে কচুয়া পৌর বাজারের তার বোনের বাসার টেরি বিয়ারের (খেলনা পুতুল) থেকে ৭ লক্ষ উদ্ধার করে চুরির মূল রহস্য উদঘাটন করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *