চাঁদপুরে কর্মহীন ও অস্বচ্ছল সংস্কৃতিসেবীদের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান

নিজস্ব প্রতিবেদক :
বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে স্থবিরতা নেমে আসে। যার কারণে দেশের লক্ষ লক্ষ সাংস্কৃতিক সংগঠক ও শিল্পীরা বেকার ও ঘরবন্দী হয়ে পড়ে। এমতবস্থায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কর্মহীন ও ঘরবন্দী অসচ্ছল সংস্কৃতি শিল্পীদের সহায়তায় আর্থিক প্রনোদনা ঘোষনা করেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণাকৃত এবং বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি কর্তৃক চাঁদপুরের জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে ৫০ জন কর্মহীন সাংস্কৃতিক সংগঠক ও শিল্পীদের মাঝে জনপ্রতি ৫ হাজার টাকার সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।
২৫ জুন বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় চাঁদপুর শহরস্থ জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে ৫০ জন সংস্কৃতিসেবীদের মাঝে ৫ হাজার টাকার চেক তুলে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান-এর পক্ষে চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এস এম জাকারিয়া। বিশেষ অতিথি ছিলেন, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সাধারণ শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অহিদুজ্জামান।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা শিল্পকলা একাডেমির নির্বাহী সদস্য নাট্যজন শহীদ পাটোয়ারী, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, চাঁদপুর জেলা শাখার সভাপতি তপন সরকার, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা-২০১৯ নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান অ্যাড. বদিউজ্জামান কিরণ, চতুরঙ্গের মহাসচিব ইলিশ উৎসবের রূপকার হারুন আল রশিদ, চাঁদপুর সাংস্কৃতিক চর্চা কেন্দ্রের সদস্য সচিব ইয়াহিয়া কিরণ, বর্ণচোরা নাট্যগোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক নাট্যজন শরীফ চৌধুরী, অনুপম নাট্যগোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক গোবিন্দ মন্ডল, স্বরলিপি নাট্যদলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এম আর ইসলাম বাবু, চাঁদপুর ড্রামার সাধারণ সম্পাদক কে এম মাসুদ প্রমুখ। সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সাধারণ শাখার প্রধান অফিস সহকারী মোঃ সাখাওয়াত হোসেন ও জেলা শিল্পকলা একাডেমির অফিস সহকারী মাসুদ দেওয়ান।
উল্লেখ্য, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির পক্ষ থেকে ২ লাখ ৫ হাজার টাকা ৫০ জন তালিকাভুক্ত সংস্কৃতিসেবীদের নামে চেকের মাধ্যমে বিতরণ করা হয়।
এদিকে খুব সহসাই সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দকৃত ৫০ জন নাট্য ও সঙ্গীত শিল্পীদের অনুরূপভাবে ৫ হাজার টাকা করে বরাদ্দ আসবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের দায়িত্বশীল কর্মকর্তা। ইতিমধ্যে ওই তালিকা সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রেরণ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *