চাঁদপুরে বাড়ছে ইলিশের আমদানি, বেশিরভাগই সাগরের

ইব্রাহীম রনি :
চাঁদপুরে বাড়তে শুরু করেছে ইলিশের আমদানি। ইলিশের সবচে বড় বাজার চাঁদপুর বড়স্টেশন মাছঘাটে মঙ্গলবারও প্রায় ৮শ’ মন ইলিশ আমদানি হয়েছে। আমদানিকৃত ইলিশের মধ্যে মাত্র একশ’ মন ইলিশ চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনার। আর বাকী সবই হাতিয়া, সন্দ্বিপসহ সাগর অঞ্চলের মাছ। মাছের আমদানি বাড়ায় দামও কিছুটা কমতে শুরু করেছে। এতে করে কর্মচাঞ্চল্যতা ফিরেছে জেলে, ঘাটের শ্রমিক, আড়তদার ও ব্যবসায়ীদের মাঝে।
চাঁদপুর বড়স্টেশনের আড়ৎদার ইমান হোসেন গাজী বলেন, গত ৫ দিন ধরেই মাছের আমদানি বাড়তির দিকে। গত সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে বড়স্টেশন মাছের আমদানি হয় প্রায় ৫শ’ মন। আর চলতি সপ্তাহের প্রথম দু’ দিন মাছের আমদানি বেড়ে প্রায় এক হাজার মনে উন্নীত হয়। এসব ইলিশের বেশিরভাগই সাগরের মাছ। চাঁদপুর পদ্মা-মেঘনার ইলিশের আমদানি কম।
তিনি জানান, ৪শ থেকে ৭শ’ গ্রাম ওজনের ইলিশের দাম ছিল প্রতি মন পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ১৯ হাজার টাকা। যা দু’ দিন আগে ছিল ২৬ হাজার থেকে ২৭ হাজার টাকা। আর ৮শ থেকে ৯শ’ গ্রামের ইলিশ বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৩০ হাজার টাকা। আর এক কেজি থেকে ১২শ’ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৩৬ হাজার টাকা প্রতি মন। তবে চাঁদপুর নদী অঞ্চলের মাছের দাম সব সময়ই একটু বেশি থাকে।
তিনি বলেন, লকডাউনের কারণে বেচাকেনা কিছুটা কম। বিভিন্ন স্থান থেকে আগে বিপুল পরিমাণ যে খুচরা ক্রেতা আসতো সেই ক্রেতা এখন নেই। তবে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যারা মাছ বিক্রি করেন তারাই এখন পাইকারি মাছ কিনে নিচ্ছেন। খুচরা ক্রেতা থাকলে ইলিশের দাম আরও ভালো পাওয়া যেত।
চাঁদপুর বড়স্টেশনের মৎস্য ব্যবসায়ী সাগর হোসেন বলেন, চলতি সপ্তাহে বাজারে মাছের আমদানি কিছুটা বেড়েছে। বর্তমানে বাজারে গড়ে প্রতিদিন ৯শ’ থেকে হাজার মন ইলিশ আমদানি হচ্ছে। এসব মাছের বেশিরভাগই হাতিয়া, সন্দ্বিপ অঞ্চলের মাছ। মাঝে মধ্যে আবার আমদানি কমেও যাচ্ছে। আশা করি, সামনে ইলিশের আমদানি আরও বাড়বে। তখন দামও আরও কমবে।
চাঁদপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. গোলাম মেহেদী হাসান বলেন, এবার বৃষ্টি দেরিতে শুরু হয়েছে। ইলিশ মাইগ্রেশনের ক্ষেত্রে বৃষ্টি একটা বড় ফেক্টর। নদীতে পানি প্রবাহ কম। এসব কারণে মাছ মাইগ্রেট করছে না।
তিনি বলেন, উপকূলীয় কয়েকটি জেলায় কম্বিং অপারেশ চলছে। এটি চলবে ২৩ জুলাই পর্যন্ত। এ কারণে ওইসব এলাকায় ইলিশ ধরতে পারছেন না জেলেরা। আশা করি, এরপর থেকে বাজারে প্রচুর ইলিশ আসবে। এছাড়া চাঁদপুর অঞ্চলে মাছ আসতে কিছুটা সময় লাগে। এখানেও দ্রুতই ভালো পরিমাণ ইলিশ পাওয়া যাবে।
তিনি জানান, গত বছর শুধু চাঁদপুরেই ইলিশ আমদানি হয়েছিল ৪৮ হাজার ৩২৫ মেট্রিক টন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *