চাঁদপুরে রাত ৮টার মধ্যে দোকান-মার্কেট বন্ধ, ধর্মীয়-সামাজিক ক্ষেত্রে জনসমাগম নিষিদ্ধ

পর্যটন স্পটে জনসমাগম নিষিদ্ধ ॥ বাস্তবায়নে আবারও মাঠে ভ্রাম্যমাণ আদালত
ইব্রাহীম রনি
চাঁদপুরে করোনা সংক্রমণরোধে এবং জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ১৮ দফা নির্দেশনা বাস্তবায়নে আবারও কঠোর অবস্থান নিয়েছে জেলা প্রশাসন। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল বুধবার জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশের উপস্থিতিতে বৈঠক করেছে জেলা কমিটি। এছাড়া ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয়ে নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মূখ্য সচিব। নিদের্শনা অনুযায়ী করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকির জেলা হিসেবে চাঁদপুরে সব ধরনের ধর্মীয়-সামাজিক জনসমাগম নিষিদ্ধ, পর্যটন স্পটগুলোতে জনসমাগম বন্ধ, রাত ৮টার মধ্যে সকল দোকানপাট, মার্কেট বন্ধ, বাস-লঞ্চে অর্ধেক যাত্রী পরিবহন, কোচিং সেন্টার বন্ধ, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, ইতোমধ্যেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে আমাদেরকে ১৮ দফা নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এরই ধারাবাকিতায় আজ ৩১ মার্চ আমরা জেলা কমিটির মিটিং করেছি। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের সাথে আমরা ভিডিও কনফারেন্স করেছি। তিনি আমাদেরকে নির্দেশনা দিয়েছেন- উচ্চ ঝুঁকির যে জেলাগুলো আছে সেসব জেলায় সকল ধরনের ধর্মীয়-সামাজিক গেদারিং তথা বিয়ে অনুষ্ঠান, জন্মদিনের অনুষ্ঠান, ওয়াজ-মাহফিল, মেলা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়া পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত পর্যটন এলাকাগুলোতে জনসমাগম নিষিদ্ধ।
তিনি আরও বলেন, বাস-লঞ্চে অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সকল ধরনের স্কুল-কলেজগুলোতে আগে থেকেই বন্ধ আছে। তবে কিছু কোচিং সেন্টার খোলা ছিল। সেগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আর রাত ৮টার পরে কোন ধরনের মার্কেট কিংবা দোকান খোলা থাকবে না। সেই সাথে জনগণ যেন জরুরী প্রয়োজন ছাড়া রাত ৮টার পর কেউ বাইরে বের না হওয়ার আহ্বান জানাই।
জেলা প্রশাসক বলেন, করোনা সংক্রমণরোধে জনসচেতনতা বাড়াতে আমরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছি। বুধবারও জেলাতে ৩টি মোবাইল কোর্ট এবং উপজেলাগুলোতেও মোবাইল কোর্ট ছিল সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত। জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে আমরা বিভিন্ন স্থানে মাইকিং করছি। আগামীকাল বৃহস্পতিবার [আজ] আমরা বাস মালিক সমিতি, লঞ্চ মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দের সাথে মিটিং করবো। তারা যাতে অর্ধেক যাত্রী পরিবহন এবং নিয়মগুলো মেনে চলে।
প্রসঙ্গত, চাঁদপুরে পদ্মা-মেঘনা ডাকাতিয়ার মিলনস্থল বড়স্টেশন মোলহেড, মোহনপুর পর্যটন স্পট, মিনি কক্সবাজার খ্যাত চরে প্রতিদিনই ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসেন পর্যটকরা।
উল্লেখ্য, চাঁদপুরে এ পর্যন্ত ৩ হাজার ১১২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯৩ জন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *