বর্তমান সময়ে প্রায় সকল ক্ষেত্রেই নারীদের অংশগ্রহণ রয়েছে : পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ

নারী দিবসে চাঁদপুর জেলা পুলিশের আয়োজনে আলোচনা সভা
অভিজিত রায় :
টেকসই আগামীর জন্য জেন্ডার সমতাই আজ অগ্রগণ্যদ এ শ্লোগানে ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে চাঁদপুর জেলা পুলিশের আয়োজনে আলোচনা সভা ও সংর্বধনা প্রদান করা হয়েেছ।
মঙ্গলবার (৮ মার্চ) বিকেলে পুলিশ লাইনস মিলনায়তনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মো. মিলন মাহমুদ বিপিএম (বার)। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, নিজে নিজেকে ধন্য মনে করছি একজন মহীয়সী নারীকে আমরা সংবর্ধণা দিতে পেরেছি। পুলিশ সুপার বলেন, আমারা যতো উন্নতির দিকে যাচ্ছি, ততো আমাদের প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে হচ্ছে। এক সময় ছিল যখন নারীরা অফিসে গিয়ে কাজ করবে তা ভাবাই যেতোনা। বর্তমান সময়ে প্রায় সকল ক্ষেত্রেই নারীদের অংশগ্রহণ রয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের দেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, মন্ত্রী সভার বেশ কয়েকজন সদস্য, এবং চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক নারী। বিচার বিভাগসহ, সনা, পুলিশ, আনসারসহ আরো বিভাগে নারীরা দক্ষ ও গর্বের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, আমরা যদি সম অধিকার চাই, তাহলে নারীদেরকেও তাদের মানসিকতার পরিবর্তন করতে হবে। এখন নারীরা অনেক কঠিন ও পরিশ্রমী কাজের সাথে জড়িত। নারীরা কর্মক্ষেত্রে পুরুষের চাইতে বেশি ধৈর্য্য রাখতে পারেন।
অনুষ্ঠানে স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধা ডা. সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী ও ব্রাকের কর্মকর্তা বদরুদুজ্জা আরফিন এ দুই গুণী নারীকে তাদের কর্মের জন্য জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান পূর্বক সংবর্ধিত করা হয়।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) সুদীপ্ত রায়ের পরিচালনায় সংবর্ধিত অতিথি স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধা ডা. সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী, ব্রাকের কর্মকর্তা বদরুদুজ্জা আরফিন, বিশেষ অতিথি চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মিলন, সাবেক সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক রিয়াদ ফেরদৌস, ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, এসআই শামীমা বক্তব্য রাখেন।
বক্তারা বলেন, নারীর ক্ষমতায়নে রোল মডেল বাংলাদেশ। আজ আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, বিরোধী দলীয় নেত্রীসহ অনেক বড় পদে নারীরা অধিষ্ঠিত। আজ দেশের নারীরা তাদের নিজ দর্পে অনেক এগিয়েছে। সকল দপ্তরে আজ নারীদের উপস্থিতি চোখে পরার মতো। নারী ও পুরুষ উভয় মিলে এ দেশকে গড়ে তুলবো। মায়ের জাত হিসেবে নারীদেরকে অবশ্যই সম্মান করতে হবে। আমাদের এগিয়ে যেতে হলে অর্থনৈতিক মুক্তি দরকার তাই, পুরুষের পাশাপাশি নারীদেরকে চাকুরির ক্ষেত্রে এগিয়ে নিতে হবে। বিশেষ করে ডিবির এসআই শামীমা তার চাকরি জীবনের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে প্রান্জল বক্তব্য তুলে ধরে বলেন, একদিন আমাদের পুলিশ সুপারের সাথে কথা বলতে ১০/১২ ঘাট পার হয়ে তারপর। কিন্তু এখন স্যাররা সরাসরি আমাদের সাথে কথা বলেন, আমরা বলি, দিক নির্দেশনা দেন। এটি আমাদের কাজের গতি বাড়ায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.