বাগাদীতে স্থায়ীভাবে নদী ভাঙন প্রতিরোধের পরিকল্পনা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুর সদর উপজেলার বাগাদী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইসলামপুর গাছতলা গ্রামে ডাকাতিয়ার ভাঙ্গনকৃত স্থান পরিদর্শন করা হয়।
গতকাল শনিবার ৩ জুলাই সকালে ভাঙনকৃত স্থান পরিদর্শন করেন চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান, চাঁদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এস এম রেফাত জামিল, উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ নকিব আল হাসান, উপ-সহকারী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর হোসেন, ইউপি সদস্য জাকির খানসহ এলাকার ২ শতাধিক লোকজন উপস্থিত ছিলেন।
প্রসঙ্গত ডাকাতিয়া নদীর ভাঙনের মুখে প্রায় ২ শতাধিক পরিবার হুমকির মুখে রয়েছে। গত ৫ বছরে ডাকাতিয়ার ভাঙনে প্রায় ৫০ থেকে ৬০টি পরিবারের বসত ভিটি, বাগান, বিভিন্ন প্রজাতির গাছ ও প্রায় ১৫ একর আবাদি জমি ডাকাতিয়ায় বিলীন হয়ে গেছে। বর্তমানে হুমকির মুখে থাকা বাড়ি গুলো যে কোনো সময় ডাকাতিয়া নদী গ্রাস করতে পারে। আর এসব বাড়ি গুলো হচ্ছে ঃ খান বাড়ি, গাজী বাড়ি, ডিলার বাড়ি ও জমাদ্দার বাড়ি।
পরিদর্শনে এসে চাঁদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এস এম রেফাত জামিল বলেন, স্থায়ী ভাবে ভাঙন রক্ষাকল্পে দীর্ঘ পরিকল্পনা রয়েছে। বর্তমানে ভাঙন রক্ষা করতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে। বরাদ্ধ এলেই প্রাথমিক ভাবে কাজ করা হবে।
চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান বলেন, ভাঙ্গন রোধে মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপির সাথে যোগাযোগ করবো। যাতে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়। এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলীকে অনুরোধ করেন বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখার জন্য।
স্থানীয় জনপ্রতিনিধি জানান, দীর্ঘ দিন যাবত ইসলামপুর গ্রামটি ডাকাতিয়া নদীতে ভেঙে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত প্রায় ৫০ থেকে ৬০টি পরিবারের বসত ভিটি ডাকাতিয়ায় বিলীন হয়ে গেছে। বর্তমানে প্রায় ২ শতাধিক পরিবার হুমকির মুখে রয়েছে। ভাঙ্গনকৃত স্থান দ্রুত রক্ষা না করলে যে কোনো সময় বাড়ি ঘর বিলীন হয়ে কেয়ারের সড়ক বিলীন হয়ে যেতে পারে। ভাঙ্গন রক্ষাকল্পে চাঁদপুরের কৃতী সন্তান শিক্ষামন্ত্রীকে অবহিত করবো। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বলেছেন ভাঙ্গনকৃত স্থান রক্ষা করার জন্য কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে দ্রুত ব্যবস্থা নিবেন বলে আমাকে আশ্বস্ত করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *