ষাটনল পরিদর্শনে পর্যটন কর্পোরেশন চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান মিয়া

কামরুজ্জামান হারুন :
চাঁদপুরের মতলব উত্তরের ষাটনল ইউনিয়নের মেঘনা নদীর তীরের ষাটনল এলাকা পর্যটক বান্ধব করার জন্য পর্যটন কর্পোরেশনের গৃহীত উদ্যোগের সম্ভাব্যতা যাচাই করতে ১২ জুন শনিবার বিকেলে সরেজমিন পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান মোঃ হান্নান মিয়া।
পরিদর্শনকালে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক ড. মোহাম্মদ আবদুল লতিফ, পর্যটন কর্পোরেশনের মহাব্যবস্থাপক মোঃ জাকির হোসেন ও মাহমুদ কবির ( উপসচিব), চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি), ইমতিয়াজ হোসেন, মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) গাজী শরিফুল হাসান, সহকারী কমিশনার(ভূমি), আফরোজা হাবিব শাপলা, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী। এছাড়া দৈনিক সময়ের আলোর ষ্টাফ রিপোর্টার ঢালী কামরুজ্জামান হারুন, মতলব উত্তর প্রেসক্লাবের সভাপতি বোরহান উদ্দিন ডালিম, মতলব উত্তর উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আব্দুল লতিফ মিয়াজী, মতলব উত্তর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম মনির, মতলব উত্তর উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এমএম সাইফুল ইসলাম সহ
বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকার প্রতিনিধি ও ষাটনল ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন।
বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান মোঃ হান্নান মিয়া সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জানান, মেঘনানদী বেষ্টিত ষাটনল একটি পর্যটক বান্ধব এলাকা। এটি নদী তীরবর্তী হওয়ায় এবং পাশে লঞ্চঘাট থাকায় দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে পর্যটকদের ভিড় লক্ষ্য করা যাবে। তিনি বলেন, এটিতো পর্যটনে রূপ পাওয়ার কথা আরো আগেই। কিন্তু গত ২০/২১ বছরে বিষয়গুলো নিয়ে নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করা হয়নি। দেখলাম চিঠি চালাচালি, জমির জন্য টাকা বরাদ্দসহ অনেকদূর এগিয়েছে আবার বেশ সময় ধরে থমকে গেলো। তিনি আরো জানান, মনে হচ্ছে নানান প্রতিকূলতার কারণে ষাটনল পর্যটন কেন্দ্রটি আলোর মুখ দেখেনি। ঈদগাহ, গনকবর বাদ দিয়ে এতো সুন্দর জায়গায় পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলা সম্ভব। এখানে ৮ একর জমি রয়েছে। গনকবর ও ঈদগাহ জায়গা বাদ দিলে ৬ একর জমিতে পর্যটন কেন্দ্র করা অনায়াসে সম্ভব হবে। আমি পর্যটন কর্পোরেশনে এলাম নতুন। এ বিষয়গুলো আমি দেখবো এবং যতো শীগ্র সম্ভব, এটিকে পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলার জন্য কাজ করবো। আর এখানের মাননীয় সাংসদ নুরুল আমিন রুহুল সাহেবও যথেষ্ট আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। স্থানীয় জনগণেরও আগ্রহ রয়েছে।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক ড. মোহাম্মদ আবদুল লতিফ জানান, পর্যটন সংক্রান্ত মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে ষাটনল এলাকায় মেঘনা নদীর তীরে পর্যটক বান্ধব পরিবেশ তৈরির বিষয়ে তিনি সর্বাত্মক চেষ্টা করবেন। এ জন্য এলাকাবাসীর সার্বিক সহায়তা কামনা করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *