হাজীগঞ্জে ‌বৃদ্ধের মরদেহ দাফন হলো ১২ ঘন্টা পর, এগিয়ে আসেননি জনপ্রতিনিধি

ইব্রাহীম রনি :
চাঁদপুরের হাজীগঞ্জের ৫নং হাজিগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডে মারা গেছেন ৯০ বছর বসয়ী মো. ফজলুল হক হাওলাদার নামে এক বৃদ্ধ। মৃত্যুর পর জানানো হলেও দাফনে আসেননি ‘বার্ধক্যজনিত মৃত্যু’ দাবি করা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। ফলে মরদেহ পড়ে থাকে দীর্ঘ ১২ ঘন্টা। পরে ইসলামী আন্দোলনের স্বেচ্ছাসেবক টিম গিয়ে তার মারদেহ দাফন করে। স্বেচ্ছাসেবক টিম জানায়, তিনি করোনা উপসর্গ নিয়ে গত রাত ৯টার দিকে তিনি তার বাড়িতে মারা যান। আর দাফন করা হয়েছে মঙ্গলবার সকাল ৯টায়।
স্থানীয়রা ও ইসলামী আন্দোলনের স্বেচ্ছাসেবক টিম জানায়, করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ার পর বৃদ্ধের মরদেহ দাফনে কেউ এগিয়ে আসেনি। পরে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা মোঃ জসিম উদ্দিন ইসলামী আন্দোলনের স্বেচ্ছাসেবক টিম সমন্বয়কারী হাফেজ শাহাদাতকে দাফনের ব্যাবস্থা করার অনুরোধ জানান। এর প্রেক্ষিতে ২৩ জুন মঙ্গলবার সকাল ৯টায় বৃদ্ধের মরদেহ দাফন করে স্বেচ্ছাসেবক টিম।
এ বিষয়ে স্থানীয় মেম্বার আশেক আলী বলেন, তিনি আমার প্রতিবেশী ছিলেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি অসুস্থ ছিলেন। তার শ্বাসকষ্ট ছিলো। গত রাত ৯টার দিকে তার মৃত্যুর বিষয়টি আমাকে জানানো হয়। বার্ধক্যজনিত কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। কেউ এগিয়ে না আসা সম্পর্কে তিনি বলেন, আলীগঞ্জে আমার একটু কাজ ছিল। তাই আমি যেতে পারিনি। তিনি বলেন, মানুষ দূর থেকে অনেক কথাবার্ত শুনে তাই হয়তো এগিয়ে আসেনি। তারপরও জেনেছি স্থানীয়রা সহযোগিতা করেছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এসএম শোয়েব আহমেদ চিশতী বলেন, করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ার এমন কোন খবর আমি জানি না। তাছাড়া এ ধরনের কোন খবর স্থানীয় চেয়ারম্যানও আমাকে জানাননি।
এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সফিকুল ইসলাম মীর বলেন, স্বেচ্ছাসেবকরা কিভাবে বুঝলো তিনি করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন? আর আমি কিভাবে বুঝবো তার করোনা উপসর্গ ছিল কি না? মেম্বার আমাকে জানিয়েছেন তিনি বার্ধক্যজনিতকারণে মারা গেছেন। তাই উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগকে জানাইনি। তিনি বলেন, কিছু দিন আগে ভালো মানুষ একজন মারা গেছেন। পরে তার এবং পরিবারের নমুনা টেস্ট করে দেখা গেছে কেউই করোনা আক্রান্ত নয়। পরে তারা আমাকে কি পরিমাণ গালাগালি করেছে- তা আমি জানি।
ইসলামী আন্দোলন জানায়, স্বেচ্ছাসেবক এ টিমের প্রধান হাজীগঞ্জ উপজেলা ইসলামী আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন প্রধানিয়া সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামাল গাজী, ২নং বাকিলা ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা শরাফত উল্লাহ, হাজীগঞ্জ উপজেলা ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের কওমী মাদ্রাসা বিষয়ক সম্পাদক মো. আব্দুল কাদের, উপজেলা ইসলামী আন্দোলনের কৃষি ও শ্রমবিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন হাওলাদার। সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন হাজীগঞ্জ উপজেলা ইসলামী আন্দোলনের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রাশেদুজ্জামান পাটোয়ারী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *